Friday 19th of August 2022
Home / আঞ্চলিক কৃষি / বারি সরিষা-১৭ এর মাঠ দিবস ও রিভিউ ডিসকাশনের আলোচনা সভা

বারি সরিষা-১৭ এর মাঠ দিবস ও রিভিউ ডিসকাশনের আলোচনা সভা

Published at মার্চ ১, ২০২২

আশিষ তরফদার (পাবনা) : পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আয়োজিত কৃষক পর্যায়ে উন্নত মানের ডাল, তেল ও মসলা বীজ উৎপাদন সংরক্ষণ ও বিতরণ (৩য় পর্যায়) প্রকল্পের আওতায় বারি সরিষা-১৭ এর বীজ উৎপাদন ব্লক প্রদর্শণীর মাঠ দিবস ও রিভিউ ডিসকাশনের আলোচনা সভা আড়মবাড়িয়া ব্লকের গোপালপুর গ্রামের কৃষক মুক্তার হোসেনের বাড়ীর প্রাঙ্গণে সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মিতা সরকারের সভাপতিত্বে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ মিজানুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন পাবনার অতিরিক্ত উপ-পরিচালক কৃষিবিদ  মো.আব্দুল লতিফ ও কৃষিবিদ মো. রোকুনজ্জামান অনুষ্ঠানে আর উপস্থিত ছিলেন ঈশ্বরদী উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার কৃষিবিদ মাহমুদুল আলম খান ।

অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্যে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মিতা সরকার বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর ভালো ফলন পেয়েছেন কৃষকরা। চলতি মৌসুমে উপজেলায় ৭ শত ৫০ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে। ফসল সংগ্রহ প্রায় শেষ পর্যায়ে। সরিষার বাজার ভালো থাকায় কৃষকেরা এ বছর ভালো দাম পাচ্ছেন এবং এ জাতের সরিষার ফলন ভালো হওয়ায় কৃষকেরা আগামী বছরের জন্য নিজেদের বীজ নিজে সংরক্ষণ করছেন।

প্রধান অতিথি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. মিজানুর রহমান বলেন, ঈশ্বরদী উপজেলায় চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় সরিষার ফলন ভাল হয়েছে। ফলন আশাব্যঞ্জক হওয়ায় কৃষকের জন্য এ জাতের চাষ খুবই লাভজনক বলে, এর আবাদ বাড়ানোর জন্য তিনি উপস্থিত কৃষক-কিষাণীদের অনুরোধ জানান। বিভিন্ন হাট-বাজারে বর্তমানে প্রতি মণ সরিষা ৩ হাজার থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরিষায় উৎপাদন খরচ খুব কম ও ফলন ভাল হওয়ায় আগামীতে এ জাতের সরিষার আবাদ বাড়ানোর জন্য তিনি উপস্থিত কৃষকদের অনুরোধ জানান।

উপজেলার সাড়া ইউনিয়নের আড়মবাড়িয়া ব্লকের আসনা গ্রামের কৃষক রিপন আলী বলেন, এ বছর তিনি বারি সরিষা-১৭ আবাদ করেছিলেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন হয়েছে আশানুরুপ। প্রতি বিঘায় পাঁচ মণ ফলন হয়েছে এবং খরচ হয়েছে প্রায় চার হাজার টাকা। বাজারে প্রতি মণ সরিষা বিক্রি হচ্ছে তিন হাজার ৫০০ টাকার উপরে। সে হিসাবে তার প্রতি বিঘার সরিষা করে খরচ বাদে প্রায় ১৩৫০০/-টাকা লাভ হয়েছে বলে সভায় উল্লেখ করেন। মাঠ দিবস ও ডিসকাশন সভায় প্রায় শতাধিক কৃষক/কৃষাণী উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সহকারি কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জনাব আব্দুল মুন্নাফ।

This post has already been read 1859 times!