Friday 24th of May 2024
Home / এক্সক্লুসিভ / আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ আমি দেখতে পাচ্ছি -সেনাপ্রধান

আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ আমি দেখতে পাচ্ছি -সেনাপ্রধান

Published at মে ৬, ২০২৪

আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের ভিত্তি প্রস্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস.এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

নিজস্ব প্রতিবেদক:মোশারফকে যারা চেনেন, তাদের সামনে একটিই চয়েস- নাথিং বাট টু লাভ হিম। উনাকে ভালোবাসতে হবে, উনাকে স্নেহ করতে হবে। আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ ও আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক ঘুরে দেখে মনে হয়েছে খুব শীঘ্রই তাদের প্রোডাকশন প্রায় তিন থেকে চারগুণ বৃদ্ধি পাবে। আস্থা পরিবার এখনই যে অবদান রাখছেন এবং এর পরবর্তীতে যে অগ্রযাত্রা হবে, তাতে একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ আমি দেখতে পাচ্ছি।”

আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের ভিত্তি প্রস্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস.এম শফিউদ্দিন আহমেদ আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ লি. এর চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন চৌধুরী এসব কথা বলেন। গত ৪ অক্টোবর নারায়নগঞ্জ জেলার সোনার গাঁ’র লাধুরচর এলাকায় উক্ত অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক এলাকায় মূলত রিলায়েন্স ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড নামক একটি ফিডমিল (যার উৎপাদন ক্ষমতা ৯৬ মে. টন/ঘণ্টা; যেখানে পোলট্রি, ফিস ও ক্যাটলসহ সব ধরনের ফিড ছাড়াও ফার্মেন্টেশন ও সয়াবিন এক্সট্রুশন করা হবে); আস্থা প্যাক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড (ফিডসহ অন্যান্য ভোগ্যপণ্যের জন্য প্রতিদিন ১,২০,০০০ পিস ওভেন ব্যাগ উৎপাদনসম্পন্ন ফ্যাক্টরি) এবং আস্থা স্টার্চ অ্যান্ড কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড স্থাপন করা হবে;যেখানে প্রতিদিন ৩০০ মে.টন ভুট্টার স্টার্চ উৎপাদন করা হবে যা দেশের টেক্সটাইল, পেপার, ফার্মাসিউটিক্যালস, প্যাকেজিং, ফুড অ্যান্ড বেভারেজ শিল্পে কাজে লাগবে।

জেনারেল এস.এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, একটি প্রতিষ্ঠান হঠাৎ করেই এই অবস্থানে আসা যায় না, এজন্য অনেকেরই কঠিন পরিশ্রম ও আত্মত্যাগ রয়েছে। আমি বিশ্বাস করি- আপনাদের সততা, পরিশ্রম, আনুগত্য, দেশপ্রেম এই প্রতিষ্ঠানকে ভবিষ্যতে তার স্বপ্নের জায়গায় নিয়ে যেতে সক্ষম হবে। যে কোন ব্যবসার মূল উদ্দেশ্য হলো লাভ করা, সেই লাভ করার পাশাপাশি দেশের প্রতি বা যেখানে তারা ব্যবসা করে, সেখানের মানুষের প্রতি তাদের একটা দ্বায়িত্ববোধ থাকে। আমাদের সবকিছুর ঊর্ধ্বে দেশ-এটি মনে রাখতে হবে।

সেনাপ্রধান বলেন, আজকে বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে, অনেক উন্নয়ন হয়েছে; কিন্তু এই উন্নয়ন সম্ভব হতো না যদি বাংলাদেশ একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হতো। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রায় যখনই সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী তার ভূমিকা রাখার চেষ্টা করেছে।

সেনাপ্রধান শফিউদ্দিন আরো বলেন, দেশের অগ্রযাত্রায় এবং অর্থনীতিতে প্রাণিজ সেক্টর যে ভূমিকা রাখছে, তার জন্য একজন বাংলাদেশি নাগরিক হিসেবে অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানাই। আমার কাছে এ ধরনের অনুষ্ঠানে এসে খুবই ভালো লাগছে; কারণ, এটি জাতীয় অর্থনীতিতে সরাসরি অবদান রাখছে।

আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ এর চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন চৌধুরী বলেন, কোভিডের সময় অন্যান্য ব্যবসায়ীরা যখন পেছনের দিকে যাচ্ছে, তখন আমরা সামনের দিকে এসে আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ প্রতিষ্ঠা করি। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিগত চার বছরে প্রান্তিক খামারিদের আস্থা অর্জন করতে পেরেছি বলে আমরা মনে করি। আমাদের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিরলস পরিশ্রম এবং খামারি ও ডিলারগণের সহযোগিতার ফলে সারা বাংলাদেশে আস্থা ফিড তার কোয়ালিটি ও সেবার মাধ্যমে যে বিস্তার লাভ করেছে তা থেকেই বুঝা যায় মানুষের মনে এটি কতটুকু আস্থা অর্জন করতে পেরেছে।

আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ এর চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন চৌধুরী।

মোশারফ হোসেন চৌধুরী বলেন, আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের মাধ্যমে আমরা নতুন যে তিনটি প্রতিষ্ঠান গড়ার উদ্যোগ নিয়েছি সাধারণ মানুষ হয়তো এগুলোর ব্যাপারে সরাসরি অবগত নন। কিন্তু দেশের গ্রামীণ অর্থনীতির একটি বৃহৎ অংশ টিকে আছে এসব প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে। বাংলাদেশে বর্তমানে বছরে প্রায় ৪০ লাখ টন ভুট্টা উৎপাদিত হয়; আর কৃষি অর্থনীতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই ভুট্টা। ভুট্টার প্রায় পুরোটাই ফিড শিল্পে ব্যবহৃত হয়। দেশে যে সয়াবিন মিল উৎপন্ন হয় সেটিও ফিড শিল্পে ব্যবহৃত হয় এবং বাংলাদেশের কৃষি অর্থনীতিতে এটিও একটি বিরাট অংশ দখল করে আছে।

“আপনি চিন্তা করেন, ভুট্টা চাষিরা আমাদের স্টেক হোল্ডার, সয়াবিন চাষিরা আমাদের স্টেক হোল্ডার, মুরগি যারা পালে তারা আমাদের স্টেক হোল্ডার, মাছ যারা চাষ করেন ও গরু যারা পালেন তারাও আমাদের স্টেক হোল্ডার। অর্থাৎ সারাদিন আমরা যাই-ই খাই তারা প্রায় ৮০ শতাংশই এই ইন্ডাস্ট্রির সাথে জড়িত। দেশের মানুষের প্রাণিজ আমিষের যে চাহিদা সেটি আমাদের ইন্ডাস্ট্রি থেকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে। সমাজের নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো টিকে আছে কিন্তু আমাদের মতো ইন্ডাস্ট্রি ডেভেলপ করার কারণে। তাই এই জায়গাগুলো যদি অবহেলিত থেকে যায়, তাহলে আমরা কখনোই আমাদের কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে সক্ষম হবো না” -যোগ করেন মোশারফ হোসেন চৌধুরী

আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. গিয়াসউদ্দিন খান (স্বপন)।

আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. গিয়াসউদ্দিন খান (স্বপন) স্বাগত বক্তব্যে বলেন, প্রতিষ্ঠার প্রায় চার বছরের মাথায় আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ দেশের খামারি ও পরিবেশকদের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে এবং তাদের সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণার ফলেই আমরা আজ আস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক স্থাপন করার সাহস করেছি। আমরা এজন্য আমাদের খামারি ও পরিবেশক ভাইদের আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের হুইপ এবং নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, ময়মনসিংহ-৫ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মো. নজরুল ইসলাম, এফবিসিসিআই এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আমিন হেলালী, আমানত শাহ গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. হেলাল মিয়া, আস্থা ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড এর নির্বাহী পরিচালক সাইফুল ইসলাম বাবু, পরিচালক সালাহউদ্দিন ইমন। এছাড়াও সরকারি-বেসরকারি ও সামরিক বাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

This post has already been read 1087 times!