Sunday 25th of February 2024
Home / অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য / চালের দাম যেভাবে লাফিয়ে বাড়িয়েছেন, এখন সেভাবেই কমাতে হবে -খাদ্যমন্ত্রী

চালের দাম যেভাবে লাফিয়ে বাড়িয়েছেন, এখন সেভাবেই কমাতে হবে -খাদ্যমন্ত্রী

Published at জানুয়ারি ১৭, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভরা মৌসুমে আমন চালের দাম বাড়বে এটা কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। লাফিয়ে লাফিয়ে দাম বাড়িয়েছেন এখন সেভাবেই কমাতে হবে বলে হুসিয়ারি দিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

আজ বুধবার (১৭ জানুয়ারি) বিকালে খাদ্য অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে ধান চালের বাজার উর্ধ্বগতিরোধ কল্পে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ হুশিয়ারি দেন তিনি।

মিলগেটে ২ টাকা দাম বাড়লে।পাইকারী বাজারে ৬ টাকা কেন বাড়বে প্রশ্ন রেখে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, অবৈধ মজুতকারী কিংবা অহেতুক দাম বাড়িয়ে দেওয়া ব্যাবসায়ী কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়।সবাইকে জবাবদিহি করতে হবে। বিনা লাইসেন্সে যারা ধানের স্টক করছেন তারা কোনভাবেই ছাড় পাবে না বলে উল্লেখ করেন তিনি।

বিবেক না থাকলে সততা না থাকলে মানুষ হওয়া যায় না উল্লেখ করে তিনি বলেন, রেডি করা চাল বাজারে ছাড়তে হবে।সংকট তৈরি করা যাবেনা।প্রচুর ধান আছে। সরবরাহের ঘাটতি নেই। এসময় আরসি ফুড ও ডিসি ফুডদের ফুড গ্রেইন লাইসেন্স বিহীন মজুতদারি বন্ধ করতে ও লাইসেন্স নবায়ন করার জন্য নির্দেশনা দেন সাধন মজুমদার।

নওগাঁ ধান চাল মালিক সমিতির নিরোদ বরণ সাহা চন্দন বলেন, মোটা চালের দাম বাড়েনি। সরু ও মোটা চালের দাম এক নয়। মোটা চালের দাম ২-৩ টাকা বেড়েছে। গত ইরি মৌসুমের জিরাশাইল চালের দাম ৫-৬ টাকা বেড়েছে।যেভাবে ঢালাওভাবে মিলারদের দায়ী করা হচ্ছে তা ঠিক নয়। কর্পোরেট কোম্পানিগুলো ধান চালের বাজারকে অস্বাভাবিক বাড়াচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

দিনাজপুরের ব্যাবসায়ী সমিতির মি. হান্নান বলেন, সরকারিভাবে একইসাথে সব জেলা থেকে প্রকিউরমেন্ট করায় মোটা ধানের সংকট হয়। নির্বাচনের কারনে সবাই ব্যস্ত ছিলেন ছাটাই ও বাজারজাত কম হয়েছে। ইতোমধ্যে ধানের দাম ও চালের দাম কমতে শুরু করেছে। মনিটরিং বাড়ালে দাম আরো কমবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

দিনাজপুর চাল মালিক সমিতির মোসাদ্দেক হোসেন বলেন, সকল ব্যাবসায়ী বাজারে প্রতিযোগিতা করে ধান কেনায় দাম বেড়েছিল। এখন ধান কেনা বন্ধ আছে। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি চালু করলে বাজার স্বাভাবিক হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

চাল ব্যবসায়ী ফরিদ উদ্দিন বলেন,কৃষি বিভাগের উৎপাদন তথ্য সঠিক কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে। তথ্য থাকে উৎপাদন উদ্বৃত্ত কিন্তু বাস্তবে তা হয়না।

বাংলাদেশ অটো মেজর হাসকিং মিল মালিক সমিতির সেক্রেটারি এইচ আর খান পাঠান সাকি বলেন, সুস্থ প্রতিযোগিতামূলক বাজার প্রত্যাশা করি আমরা। চালের বাজার বাড়লে ছোট মিল মালিকরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

আশুগঞ্জের ব্যবসায়ী বলেন, মিলারদের কোন সিন্ডিকেট নেই।একজন আরেক জনের প্রতিযোগী। বেচা বিক্রি আগের থেকে কমেছে-দামও কমেছে।

প্রাণগ্রুপের পরিচালক কামরুজ্জামান বলেন, বাজার বাড়তি থাকায় তারা ধান কিনছে না। সঠিক পরিসংখ্যান না থাকায় বাজারের সঠিক চরিত্র প্রতিফলিত হচ্ছেনা এবং সরকারের প্লানিং ও সঠিকভাবে কাজ করছে না। এসিআই এর রুবেল বলেন, এ বছর নন প্রফেশনাল লাইসেন্ বিহীন লোক ধান কিনছে। তারা অবৈধ মজুত করে বাজার অস্থির করছে।

বেলকন গ্রুপের মি বেলাল বলেন, ধানের ওপর অযাচিতভাবে আরোপ করা ট্যাক্স প্রত্যাহার করতে হবে। একইসাথে খাদ্য অধিদপ্তরের তদারকি বাড়াতে হবে।

বাংলাদেশ অটো মেজর হাসকিং মিল মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুর রশিদ বলেন, মিলারদের প্রতিযোগিতা করে ব্যাবসা করতে হয়। সিন্ডিকেটের কোন সুযোগ নেই। দাম বেড়েছিল এটা সত্য, এখন বাজারে দাম কমতে শুরু করেছে।

খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো: সাখাওয়াত হোসেন এর সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: ইসমাইল হোসেন,এফপিএমইউ এর মহাপরিচালক মো: শহিদুল আলম, খাদ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন,বাংলাদেশ অটো মেজর রাইস মিল মালিক সমিতি,বাবু বাজার বাদামতলী বনিক সমিতি,মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট ব্যাবসায়ী সমিতি, চাল আমদানিকারকদের প্রতিনিধি ও খুচরা ব্যাবসায়ী প্রতিনিধিবৃন্দ মতবিনিময় সভায় অংশ নেন।

মতবিনিময় সভার পরে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার প্রেস ব্রিফ করেন।

This post has already been read 333 times!