Monday 17th of June 2024
Home / Event News / রাজধানীতে চলছে তিন দিনব্যাপী ‘১১তম এগ্রোটেক বাংলাদেশ- ২০২৩’

রাজধানীতে চলছে তিন দিনব্যাপী ‘১১তম এগ্রোটেক বাংলাদেশ- ২০২৩’

Published at ফেব্রুয়ারি ২, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীতে শুরু হয়েছে আন্তর্জাতিক কৃষি প্রযুক্তি প্রদর্শনী ২০২৩। ঢাকার জোয়ার সাহারায় অবস্থিত আইসিসিবি ( ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা) সেন্টারে আয়োজিত উক্ত প্রদর্শণী চলবে আজ বৃহস্পতিবার থেকে আগামী শনিবার পর্যন্ত (০২-০৪ ফেব্রুয়ারি)। মেলায় ১৩টি দেশের (বাংলাদেশ, চীন, ভারত, ইতালি, ভিয়েতনাম, জার্মানি, তাইওয়ান, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, তুরস্ক, কানাভা, সিংগাপুর ও মালয়েশিয়া) প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করছেন।

পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের আওতাধীন পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (আরডিএ), বগুড়া ও লিমরা ট্রেড ফেয়ার এন্ড এক্সিবিশনস লিঃ এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এই আন্তর্জাতিক মেলায় কৃষি প্রযুক্তি সংক্রান্ত গবেষক, উদ্যোক্তা, উৎপাদনকারী, আমদানীকারক, ব্যবহারকারী এবং সাধারণ কৃষক প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করছেন।

আজ বৃহস্পতিবার (০২ ফেব্রুয়ারী) মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খলিল আহমদ, মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব), পল্লী উন্নয়ন একাডেমী, বগুড়া। সভাপতিত্ব করেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব মো. মশিউর রহমান এনডিসি। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন একাডেমীর পরিচালক (প্রশিক্ষণ) ও মেলার আহবায়ক মো. ফেরদৌস হোসেন খান, লিমরার চেয়ারম্যান কাজী ছারোয়ার উদ্দিন প্রমুখ। ১১তম আন্তর্জাতিক কৃষি প্রযুক্তি মেলায় বিভিন্ন দেশের প্রযুক্তি প্রদর্শনের পাশাপাশি ‘Sustainable Agricultural Mechanization in Bangladesh: Challenges & Opportunities’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মো. মঞ্জুরুল আলম।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তাঁর বক্তৃতায় দেশের কৃষি উন্নয়নে এ ধরনের কৃষি প্রযুক্তি নির্ভর মেলা আয়োজনে গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হলো কৃষিখাত। দেশকে উন্নতির শিখরে এগিয়ে নিয়ে একটি সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করতে কৃষিতে স্বয়ংসম্পূ্র্ণ হওয়া এবং উত্তরোত্তর উন্নতি করার বিকল্প নেই। বাংলাদেশের সংকটকালীন অবস্থায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষিকে প্রাধান্য দিয়ে বিভিন্ন নীতি গ্রহণ করেছিলেন। পরবর্তীকালে এটি দেশের খাদ্য নিরাপত্তা ও স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে সহায়ক ভূমিকা রেখেছে।

তিনি আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরতু শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে কৃষি ও ভাগ্যাহত কৃষককুলের উন্নয়নে বাস্তবায়িত হচ্ছে বিভিন্ন কর্মসূচী। প্রচলিত সনাতন ধারার কৃষি প্রযুক্তির পরির্বতনে খামার যান্ত্রিকীকরণের পাশাপাশি উন্নত প্রযুক্তি ও কলাকৌশল এর সমন্বয় সাধন একান্ প্রয়োজন। এ লক্ষ্য পূরণে এ মেলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আয়োজক সূত্রের দাবী, এবারের প্রদর্শনীতে রাইস মিল, ফিড মিল, ওয়েল মিল, ফ্লাওয়ার মিল মেশিনারিজ, ফুড অ্যান্ড বেভারেজ প্রসেসিং অ্যান্ড প্যাকিং, এগ্রি মেশিনারি, পাওয়ার টিলার, ড্রায়ার, কুলার, চিলার এবং সাইলো সংক্রান্ত বিভিন্ন দেশের প্রযুক্তি প্রদর্শিত হচ্ছে। এবারের প্রদর্শনীতে দেশ-বিদেশের ৪ শতাধিক কোম্পানি তাদের পণ্য ও প্রযুক্তি প্রদর্শন করছেন। প্রদর্শিত কৃষি যন্ত্রপাতি ও প্রযুক্তি দেশের কৃষক সমাজকে কৃষি আধুনিকীকরণ এবং যান্ত্রিকীকরণে উৎসাহিত করবে। মেলার মাধ্যমে কৃষি ও কৃষি প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট গবেষক, প্রস্তুতকারক, আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান, প্রযুক্তি ব্যবহারকারী ও দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তাদের মধ্যে পারষ্পরিক তথ্য এবং অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ ঘটবে।

আন্তর্জাতিক এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে দেশি-বিদেশি সরবরাহকারী, ব্যবহারকারী, গবেষক এবং প্রস্তুতকারকদের মধ্যে পারস্পরিক তথ্য এবং অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে, যা দেশের কৃষি প্রযুক্তি খাতকে সমৃদ্ধ করবে, দাবী আয়োজকদের।

This post has already been read 1560 times!