Saturday 24th of September 2022
Home / অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য / টিআইবি’র প্রতিবেদন যথাযথ তথ্যের ভিত্তিতে প্রস্তুত করা হয়নি -বাণিজ্যমন্ত্রী

টিআইবি’র প্রতিবেদন যথাযথ তথ্যের ভিত্তিতে প্রস্তুত করা হয়নি -বাণিজ্যমন্ত্রী

Published at আগস্ট ১৭, ২০২২

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে টিসিবি’র ভর্তুকি মূল্যে পণ্য বিক্রয়ের উপর টিআইবি’র প্রকাশিত প্রতিবেদনের বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, এমপি। ছবি -পিআইডি।

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, এমপি বলেছেন, দেশের নিম্নআয়ের এককোটি পরিবারের মাঝে টিসিবি’র ভর্তুকি মূল্যে পণ্য বিক্রয় নিয়ে টিআইবি’র প্রতিবেদন যথাযথ তথ্যের ভিত্তিতে প্রস্তুত করা হয়নি। টিআইবি যে কোন বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করতেই পারে, তবে তা সঠিক তথ্যের ভিত্তিতে হওয়া উচিত।

বাণিজ্যমন্ত্রী আজ (১৭ আগষ্ট) ঢাকায় বাংলাদেশ সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত টিসিবি’র ভর্তুকি মূল্যে পণ্য বিক্রয়ের উপর টিআইবি’র প্রকাশিত প্রতিবেদনের বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং এ এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় দেশে এককোটি পরিবারের মাঝে নির্ধারিত ডিলারদের মাধ্যমে কার্ডধারী পরিবারগুলোর মাঝে এ পণ্য বিক্রয় করা হচ্ছে। প্রায় একশত ভাগ ভর্তুকি দিয়ে পরিবার কার্ডের মাধ্যমে টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় করা হচ্ছে। কিউআর কোর্ড ব্যবহার করে পণ্য বিক্রয়ের কারনে শৃঙ্খলা এসেছে। খুব কম সময়ের মধ্যে পণ্য বিক্রয় করা যাচ্ছে। এখন পণ্য ক্রয়ে আর কষ্ট করতে হয় না। এখন আর একই ব্যক্তির দু’বার পণ্য ক্রয়ের সুযোগ নেই। কার্ডধারী ব্যাক্তি তার সুবিধা জনক সময়ে ডিলারদের কাছ থেকে পণ্য ক্রয় করছেন। এ ক্ষেত্রে কোন ধরনের অনিয়মকে প্রশ্রয় দেয়া হচ্ছে না।

তিনি বলেন, যথাযথ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে জনপ্রতিনিধি এবং স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় এ তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। ঢাকায় অল্পকিছু ছাড়া সারা দেশে এ কার্ড বিতরণ সম্পন্ন করা হয়েছে। কার্ডধারী মানুষ এখন সুশৃঙ্খল ভাবে টিসিবি’র পণ্য ক্রয় করতে পাচ্ছেন। আমারা চেষ্টা করছি সঠিক নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে টিসিবি’র পণ্য করতে। টিসিবি’র মাধ্যমে তেল, চিনি, ছোলা, মশুর ডাল, পবিত্র রমজান মাসে চিনি, খেজুর বিক্রয় করা হয়। কার্ডের মাধ্যমে সুশৃঙ্খল ভাবে পণ্য কিনতে পেরে মানুষ খুশি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আগে ট্রাক সেলের মাধ্যমে এ পণ্য বিক্রয় করা হতো, এতে একই ব্যক্তি একাধিকবার লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্য ক্রয় করতো, অনেকে পেতো না। এ জন্য কার্ডের মাধ্যে এককোটি পরিবারের মাঝে পণ্য বিক্রয় করা হচ্ছে।  টিসিবি’র পণ্য বিক্রয়ের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। যাতে প্রকৃত নিম্ন আয়ের মানুষ এ পণ্য ক্রয়ের সুবিধা পান। টিসিবি’র পণ্য বিক্রয়ের ক্ষেত্রে অনিয়ম হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। দেশব্যাপী প্রায় ৩,৩০০ ডিলারের মাধ্যমে এ পণ্য বিক্রয় করা হচ্ছে। ডিলারের সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য কাজ করা হচ্ছে।

প্রেস ব্রিফিং এর সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ, ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশ(টিসিবি) এর চেয়ারম্যান ব্রি. জে. মো. আরিফুল হাসান এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এইচ এম শফিকুজ্জামান।

This post has already been read 221 times!