Wednesday 25th of May 2022
Home / শিক্ষাঙ্গন / বন্যার্তদের সাহায্যে একদিনের বেতন দিবেন বাকৃবির শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারিরা

বন্যার্তদের সাহায্যে একদিনের বেতন দিবেন বাকৃবির শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারিরা

Published at জুলাই ২৩, ২০১৯

মো. আরিফুল ইসলাম (বাকৃবি) : মানুষ মানুষের জন্য। অসহায় মানুষের বিপদের সময় তাদের পাশে দাঁড়ানো সকল বিবেকবান মানুষের কর্বব্য। আর এ ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের মত সচেতন সমাজ বসে থাকতে পারে না। তাই দেশে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) সকল শিক্ষক-কর্মকর্তা কর্মচারি এক দিনের বেতনের সম পরিমান অর্থ বন্যার্তদের মাঝে ত্রান হিসাবে বিতরণ করবেন। সোমবার (২২ জুলাই) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ভাইস চ্যান্সেলর সচিবালয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারিসংশ্লিষ্ট সকল সংগঠনের নেতৃবৃন্দদের নিয়ে অনুষ্ঠিত সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. লুৎফুল হাসানের আহবানে সাড়া দিয়ে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এর আগে ওই দিনই ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. লুৎফুল হাসান বাংলাদেশের বিস্তৃর্ণ জনপথ ভয়াবহ বন্যা কবলিত হওয়ায় এ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের পক্ষ থেকে বন্যা ক্ষতিগ্রস্থদের সাহায্যার্থে বিশ্ববিদ্যালযের প্রো- ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ জসিম উদ্দিন খানকে সভাপতি ও ফসল উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. এ কে এম জাকির হোসেনকে সদস্য-সচিব করে ২১ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেন। কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের সকল সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা, রেজিস্ট্রার, ট্রেজারার, প্রোক্টর.সহযোগী ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টাকে সদস্য করা হয়। কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জামালপুরের ইসলামপুর এবং ময়মনসিংহ সদরের চরাঞ্চলের বন্যার্তদের মাঝে ত্রান হিসাবে নগদ টাকা ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হবে। এছাড়াও বিধ্বস্ত কৃষি ব্যবস্থা পুণর্বাসনের লক্ষ্যে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় বিনা মূল্যে উচ্চ ফলনশীল আমন ধানের চারা বিতরনেরও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

ভিসি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের বিশ^বিদ্যালয় ত্রান কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ত্রাণ ও কৃষি পূণর্বাসন তৎপরতায় একদিনের মূল বেতনের সমপরিমান অর্থ বন্যাদূর্গতদের সাহায্যে দান করার ক্ষেত্রে সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন জেলা ছাত্র সমিতি ও ছাত্র সংগঠনও বন্যার্তদের সহায়তায় ত্রান সংগ্রহ করছেন। তিনি ছাত্রদের এমন মানবিক কাজের জন্য ধন্যবাদ জানান।

This post has already been read 1054 times!