Tuesday 27th of September 2022
Home / অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য / বাংলাদেশের উপযোগি কৃষি যন্ত্রপাতি প্রয়োজন -কৃষি মন্ত্রী

বাংলাদেশের উপযোগি কৃষি যন্ত্রপাতি প্রয়োজন -কৃষি মন্ত্রী

Published at জুন ২০, ২০১৯

কৃষি শ্রমিকের সংকটের ফলে কৃষি উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাচ্ছে। শ্রমিক সঙ্কট উত্তরণ ও কৃষি উৎপাদনশীলতা ধরে রাখতে হলে কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণের বিকল্প নেই। সরকার কৃষি যন্ত্রে ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত সহায়তা দিচ্ছে এবং প্রয়োজনে সহায়তা আরো বাড়ানো হবে। কৃষকদের যন্ত্র সম্পর্কে যথাযথ প্রশিক্ষণ দিতে হবে। বন্ধু প্রতিম দেশ জাপানের ইয়ানমার গ্রুপ বাংলাদেশে তাদের কৃষি প্রযুক্তি বাজারে নিয়ে আসছে এজন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই। আমাদের জমির প্রকৃতি ও আবহাওয়া-জলবায়ু অনুযায়ী কৃষিযন্ত্র তৈরি এবং কৃষকের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে হতে হবে। নতুন আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি এদেশের কৃষির উৎপাদন বৃদ্ধি ও কৃষকের আয় বৃদ্ধিতে অবদান রাখবে।

বুধবার (১৯ জুন) কৃষি মন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক ঢাকার ইন্টার কন্টিনেন্টালে হোটেলে জাপানের ইয়ানমার গ্রুপ এর বাংলাদেশে তাদের কৃষি প্রযুক্তির শুভ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। কৃষি মন্ত্রী বলেন, এসিআই মোটরস বাংলাদেশের হারভেস্টিং এবং ট্রান্সপ্লান্টিং টেকনোলজির অগ্রদূত। কোম্পানিটি ২০১০ সাল থেকে হারভেস্টার, এবং ২০১১ থেকে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার বিক্রয় এবং বিক্রয়োত্তর সেবা দিয়ে আসছে। ২০১৮ সালে এসিআই মোটরস এক্সক্লুসিভ ডিলারশিপ নিয়ে চুক্তিবদ্ধ হয় জাপানীজ “ইয়ানমার” কোম্পানীর সাথে। ইয়ানমারকে আমাদের কৃষকের জন্য বিক্রয়োত্তর সেবা,খুচরা যন্ত্রাংশর দিক বিশেষ নজর দিতে হবে। সরকার কৃষিযান্ত্রিকরণের জন্য ৩ হাজার কোটি টাকার ব্যবস্থা রেখেছে, প্রয়োজনে আরো দিবে।

আনুষ্ঠানে ইয়ানমারের তৈরী কৃষি প্রযুক্তির বিভিন্ন যন্ত্রের ভিডিও প্রদর্শণ করেন। তাদের কম্বাইন হারভেস্টার দ্বারা কাঁদা ও শুয়ে পড়া জমির ফসল কাটা, মাড়াই, ঝাড়াই ও বস্তাবন্দী করা যায়। এতে খরচ বাঁচে ৬১% ও শ্রম বাঁচে ৭০%। রাইস ট্রন্সপ্লান্টার ঘন্টায় ৫০ শতাংশ জমিতে ধানের চারা রোপন করা যায়। এতে খরচ বাঁচে ৩৭% ও শ্রম বাঁচে ৮০% বলে জানায় ইয়ানমার প্রেসিডেন্ট।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে অবস্থানরত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোইয়াসু ইজুমি এবং কৃষি সচিব মো.  নাসিরুজ্জামান, এসিআই গ্রুপ -এর চেয়ারম্যান এম আনিস উদ দৌলা, মি. হিরো আকি কিতাওকা, প্রেসিডেন্ট, ইয়ানমার এগ্রোবিজনেস কোম্পানি লিমিটেড, ড. এম এ সাত্তার মণ্ডল, এমিরিটাস প্রফেসর, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। প্রফেসর ড. মো: মঞ্জুরুল আলম, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বক্তব্য প্রদান করেন।

এছাড়াও উপস্থিতি ছিলেন টিভি ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ, ড. আরিফদৌলা, ড. এফএইাচ আনসারী, ইয়ানমার এগ্রো ও এসিআই মটরস ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্হিত ছিলেন।

This post has already been read 1858 times!