Thursday 22nd of February 2024
Home / অন্যান্য / খুলনার জোড়াগেটে কোরবানির পশুর হাটের উদ্বোধন

খুলনার জোড়াগেটে কোরবানির পশুর হাটের উদ্বোধন

Published at আগস্ট ১৭, ২০১৮

ফকির শহিদুল ইসলাম(খুলনা): খুলনা সিটি কর্পোরেশনের পরিচালনায় নগরীর জোড়াগেটে কোরবানির পশুর হাট বৃহস্পতিবার (১৬ ‍আগস্ট) বিকাল ৪টায় আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে। সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বেলুন উড়িয়ে ও ফিতা কেটে পশুর হাটের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিটি মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সংসদ সদস্য বলেন, খুলনা সিটি কর্পোরেশন প্রতি বছরের ন্যায় এবারও জাকজমকপূর্ণভাবে কোরবানির পশুর হাটের আয়োজন সম্পন্ন করেছে। সুব্যবস্থাপনার কারণে জোড়াগেট কোরবানির পশুর হাট এতদাঞ্চলের সর্ববৃহৎ পশুর হাটে পরিণত হয়েছে। তিনি ক্রেতা বিক্রেতাদের নিরাপত্তার বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব প্রদানসহ সকল সুবিধা নিশ্চিত করার আহবান জানান।

সভাপতির বক্তৃতায় সিটি মেয়র বলেন, খুলনা সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত কোরবানির পশুর হাট সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হওয়ায় এটি এখন ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে। এর ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হলে সংশ্লিষ্ট সকলকে সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে। তিনি বলেন, কোরবানির ঈদে শুধুমাত্র হাট ব্যবস্থাপনা করে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্ব শেষ নয়, নগরিক পরিবেশ নিরাপদ রাখতে পশু বর্জ্য দ্রুত অপসারণেও সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (নর্থ) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন ও স্থানীয় সরকার বিভাগ (জেলা প্রশাসন)-খুলনার উপ-পরিচালক নুসরাত জাহান। শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন, বাজার স্থায়ী কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর মো. হাফিজুর রহমান মনি ও স্বাগত বক্তৃতা করেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পলাশ কান্তি বালা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন, হাট পরিচালনা কমিটির আহবায়ক কাউন্সিলর মো. শামসুজ্জামান মিয়া স্বপন। কেসিসি’র কাউন্সিলর, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর, নবনির্বাচিত কাউন্সিলর, কর্মকর্তা সহ নগরীর গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, পশুর হাটে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সেবা প্রদানের লক্ষ্যে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সার্বক্ষণিক টহলের ব্যবস্থা ও সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ, বাংলাদেশ ব্যাংকের তত্ত্বাবধানে জালনোট সনাক্তকরণ, কম্পিউটারাইজড পদ্ধতিতে হাসিল আদায়, হাটে আগত বিক্রেতাদের চিকিৎসা, পশু চিকিৎসা, পর্যাপ্ত খাবার হোটেল ও টয়লেটের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

This post has already been read 1546 times!