১২ মাঘ ১৪২৮, ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
শিরোনাম :
https://mailtrack.io/trace/link/f26343803e1af754c1dd788cd7a73c22043d5987?url=https%3A%2F%2Finnovad-global.com%2Flumance&userId=1904341&signature=5e74e7dc17531970

আমের মুকুল সাদা হয়ে শুকিয়ে যায়

Published at জানুয়ারি ৮, ২০২২

কৃষিবিদ মৃত্যুঞ্জয় রায় : বড় আমগাছ, প্রচুর মুকুল অথচ গুটি টিকছে না। এর পেছনে নানা ধরনের রোগ ও পোকার আক্রমণ এবং আবহাওয়া ইত্যাদিও হাত রয়েছে।  ছোট ছোট এসব কারণে আমচাষিদের বড় ক্ষতি হয়ে যায়। আমের মুকুল কালো হয়ে পচে শুকনো ক্ষত রোগ ও শোষক পোকার কারণে, আর সাদা গুঁড়ায় ঢেকে যায় সাদাগুঁড়া বা পাউডারি মিলডিউ নামে একটি রোগের কারণে। পাউডারী মিলডিউ রোগের আক্রমণ মুকুল, ডগা ও ডগার পাতায় হয়। তবে মুকুলে বেশি হয়।

এ রোগের আক্রমণে মুকুলে ও মুকুলের ডাঁটির উপরে সাদা পাউডারের মতো আবরণ পড়ে। ধীরে ধীরে সাদা গুঁড়ায় পুরো মুকুলই ঢেকে যায়। আমের মুকুল ফোটা আগেই পাউডারী মিলডিউ রোগে আক্রান্ত হলে সেসব মুকুল বা ফুল আর পাঁপড়ি খুলতে পারে না। আক্রান্ত মুকুল থেকে আর ফল হয় না, মুকুল নষ্ট হয়ে ঝরে পড়ে। আর আক্রান্ত মুকুল থেকে দু চারটা ফল ধরলেও সেগুলো ভালভাবে বাড়ে না। আক্রান্ত মুকুল থেকে গঠিত ফলের খোসা খসখসে হয় ও কুঁচকে যায়। আক্রান্ত  কচি ফল ঝরে পড়ে। গাছে থাকা ফলের উপরের খোসা সাদা পাউডারের মত আবরণে ঢেকে যায়। এ রোগের আক্রমণে ৭০ থেকে ৮০ ভাগ পর্যন্ত ফলন কমে যেতে পারে। প্রধানত মুকুল ফোটার সময় ও গুটি মটর দানার মত হওয়ার সময় এ রোগে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়।

যখন মুকুল বের হয় না কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই বের হবে এমন অবস্থায় সাধারণত: ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে আক্রমণ শুরু হয়। শুষ্ক আবহাওয়া এ রোগ বিস্তারের অনুকূল,  দিনে গরম কিন্তু রাতে ঠাণ্ডা পড়লে এ রোগ বাড়ে। আকাশ মেঘলা থাকলেও রোগ বাড়ে। যদি ৩-৪ দিন প্রবল বাতাস থাকে ও দিনের তাপমাত্রা ৩০ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড ও রাতের তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেডের কাছাকাছি থাকে তাহলে তা এ রোগ ছড়ানোর জন্য সহায়ক হয়।

রোগ নিয়ন্ত্রণের জন্য যা করবেন

  • মুকুল আসার সময় প্রতিদিন বিশেষতঃ মেঘলা আবহাওয়াযুক্ত দিনে আম গাছ পর্যবেক্ষণ করে দেখতে হবে মুকুলে কোনো সাদাটে ভাব দেখা যাচ্ছে কিনা। এরূপ লক্ষণ দেখা গেলে গন্ধক জাতীয় ছত্রাকনাশক (থিওভিট/ রনোভিট/ কুমুলাস ইত্যাদি) প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে ৫ থেকে ৭ দিনের ব্যবধানে ২ থেকে ৩ বার বার ভালভাবে স্প্রে করতে হবে। গাছে মুকুল আসার পর কিন্তু ফুল ফোটার আগে প্রথমবার, ফল মটর দানার মতো হলে দ্বিতীয় বার এবং ফল মার্বেল আকারের হলে তৃতীয় বার ছত্রাকনাশক স্প্রে করতে হবে। এ ছাড়া প্রতি ১০ লিটার পানিতে ৫ মিলিলিটার টিল্ট ২৫০ইসি ছত্রাকনাশক মিশিয়েও স্প্রে করা যেতে পারে। কনটাফ ৫ইসি, কমপ্যানিয়ন, প্রোপিকোন ২৫০ ইসি ইত্যাদি ছত্রাকনাশকও ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • এ রোগ প্রতিরোধী আমের কোন জাত নেই। তবে যে সমস্ত জাত পাউডারী মিলডিউ রোগের প্রতি বেশি সংবেদনশীল অর্থাৎ সহজেই রোগে আক্রান্ত হয় (যেমন দশেরি) সেসব জাত লাগানোর জন্য পরিহার করতে হবে।
  • আম বাগান পরিষ্কার পরিছন্ন ও আগাছামুক্ত রাখতে হবে।

This post has already been read 311 times!

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN