Saturday 24th of February 2024
Home / নতুন প্রযুক্তি / আমদানি নির্ভরতা নিরসনে যুগান্তকারী উদ্যোগ: দেশেই তৈরি হবে হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার

আমদানি নির্ভরতা নিরসনে যুগান্তকারী উদ্যোগ: দেশেই তৈরি হবে হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার

Published at ডিসেম্বর ৩১, ২০২৩

সি‌লেট সংবাদদাতা: দেশের কৃষি যান্ত্রিকীকরণে আমদানি নির্ভরতা নিরসনে যুগান্তকারী এক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট ও বেসরকারি কৃষিযন্ত্র প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান আলীম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। আমদানি নির্ভরতা হ্রাসকরণে দেশীয় কৃষি জমি উপযোগী হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার প্রস্তুতকরণের কাজ শুরু হয়েছে। দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মত অ্যাসেম্বলি লাইনে ব্রি হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার প্রস্তুতকরণের মাধ্যমে আধুনিক কৃষিযন্ত্র প্রস্তুতের যুগে প্রবেশ করলো বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ’যান্ত্রিক পদ্ধতিতে ধান চাষাবাদের লক্ষ্যে খামার যন্ত্রপাতি গবেষণা কার্যক্রম বৃদ্ধিকরণ (এসএফএমআরএ)’ প্রকল্পের অর্থায়নে গতকাল শনিবার সিলেটে আলীম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড এর অ্যাসেম্বলী লাইনে ব্রি হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার প্রস্তুতকরণের কাজ উদ্বোধন করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (পরিকল্পনা) মোঃ মাহবুবুল হক পাটওয়ারী।

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বেতার এর মহাপরিচালক রবীন্দ্রশ্রী বড়ুয়া, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের খামার যান্ত্রিকীকরণ বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ মোশাররফ হোসেন, কৃষি মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (পরিকল্পনা-২) মোহাম্মদ এনামুল হক, উপসচিব (পরিকল্পনা-৫) তাসলিমা আহমেদ পলি, ব্রি’র পরিচালক (প্রশাসন ও সাধারন পরিচর্যা) ড. মো: আব্দুল লতিফ, উক্ত প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. এ কে এম সাইফুল ইসলামসহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এবং আলীম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে প্রকল্প পরিচালক ড. এ কে এম সাইফুল ইসলাম স্মার্ট টেকনোলজির মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে চারটি স্থানে ব্রি সীড সোয়ার মেশিন একই সাথে চালিয়ে উপস্থিত সকলকে দেখান। ইন্টারনেটের সাহায্যে ব্রি’র উদ্ভাবিত মেশিন চালনা করে স্মার্ট টেকনোলজির যুগে প্রবেশ ব্রি’র জন্য একটি মাইলফলক। স্মার্ট টেকনোলজিতে প্রবেশের জন্য অতিথিবৃন্দ প্রকল্প পরিচালককে অশেষ ধন্যবাদ জানান এবং ব্রি’র উদ্ভাবিত মেশিনগুলো স্মার্ট টেকনোলজি বেইজড করার নির্দেশ প্রদান করেন।

প্রকল্প পরিচালক তার উপস্থাপনে বলেন বর্তমানে শতভাগ কৃষি যান্ত্রিকীকরণের লক্ষ্যে সরকারী বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় ও অর্থায়নে কৃষকদের মধ্যে সরবরাহের লক্ষ্যে  হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার চায়না, কোরিয়া, ভিয়েতনামসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানী করা হচ্ছে। এতে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা খরচ হচ্ছে। এই ধরনের একটি যন্ত্র বিদেশ থেকে আমদানী করতে ৪০-৪৫ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে যেখানে ব্রি হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টারটি ২২-২৫ লক্ষ টাকায় প্রস্তুত করা সম্ভব। ফলে এর উৎপাদন খরচ আমদানীকৃত কম্বাইন হারভেস্টারের তুলনায় অনেক কম হবে। দেশীয় কাঁচামাল ব্যবহার করে তৈরিকৃত বিধায় যন্ত্রটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য খুচরা যন্ত্রাংশ প্রাপ্তিতে কোন সমস্যা হবে না। স্থানীয়ভাবে এই যন্ত্রটি ব্যাপকভাবে তৈরী করা সম্ভব হলে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রাও সাশ্রয় হবে।

দেশীয় উপযোগী কৃষিযন্ত্রটি অ্যাসেম্বলী লাইন ব্যবহারের মাধ্যমে প্রস্তুত করা হলে দেশের কৃষকরা স্বল্প সময়ে, অল্প শ্রম ও খরচে একই সাথে ধান কাটা, মাড়াই, ঝাড়াই ও বস্তাবন্দী করতে সক্ষম হবেন। প্রচলিত পদ্ধতির পরিবর্তে ধান সংগ্রহের ক্ষেত্রে এই যন্ত্র ব্যবহারের মাধ্যমে দেশের কৃষক ও কৃষি উদ্যোক্তারা তাদের সময়, শ্রম ও অর্থ সাশ্রয় করতে পারবেন। অ্যাসেম্বলী লাইনে হোল ফিড হারভেস্টার বাণিজ্যিক ভিত্তিতে উৎপাদন/প্রস্তুত করা হলে দেশীয় কৃষিযন্ত্র প্রস্তুতকারকরা বিনিয়োগে উৎসাহ পাবে এবং কৃষক পর্যায়ে দক্ষ জনশক্তি  তৈরী হবে/ গড়ে উঠবে, নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। আধুনিক কৃষিযন্ত্র প্রস্তুতকরণের সক্ষমতা বৃদ্ধি ও ব্যবস্থাপনা  বিপণন এবং আর্থিক ব্যবস্থাপনার দক্ষতাসহ খুচরা যন্ত্রাংশের বাজার বৃদ্ধি, রপ্তানির অপার সম্ভাবনা, উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহারও উৎপাদন অত্যাধুনিক কৃষিযন্ত্র প্রস্তুতকরনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

আলীম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ব্রি‘র কারিগরী সহযোগিতায় দেশীয় কাঁচামাল ব্যবহার করে দেশে এই প্রথমবারের মত অ্যাসেম্বলী লাইনে দেশীয় উপযোগী ব্রি হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার প্রস্তুতের উদ্যোগ গ্রহন করেছে। বঙ্গবন্ধু কৃষি পুরস্কার প্রাপ্ত স্বনামধন্য কৃষি যন্ত্রপাতি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান আলীম ইন্ডাস্ট্রিজ লিঃ এর কারখানায় এই অত্যাধুনিক যন্ত্রটি তৈরীর মাধ্যমে বাংলাদেশের কৃষি যন্ত্রপাতি প্রস্তুতকারক শিল্প সক্ষমতার ক্ষেত্রে আরেক ধাপ এগিয়ে যাবে অভিমত বিশ্লেষক ও অতিথিবৃন্দের।

This post has already been read 458 times!