Tuesday 23rd of April 2024
Home / সংগঠন ও কর্পোরেট সংবাদ / BAPCA কে আমরা ওউন করি -আশেক উল্লাহ রফিক, এমপি

BAPCA কে আমরা ওউন করি -আশেক উল্লাহ রফিক, এমপি

Published at জুলাই ৩০, ২০২৩

BAPCA  (Bangladesh Aqua Product Companies Association) -এর বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন (ইনসেটে ছবি) বাপকা’র উপদেষ্টা এবং কক্সবাজার-২ আসনের (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসনের সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক।

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাপকা’ কে আমরা ওউন করি, ওউন করি বলি আমরা আজ সবাই একত্রিত হয়েছি। সংঠনকে ওউন করা এবং সবাই একত্রিত হওয়া -সংগঠন হিসেবে বাপকা’র এটিই সবচেয়ে বড় সফলতা। আমাদের নানাবিধ সমস্যা ও চ্যালেঞ্জর মধ্যেও আমরা যে কাজগুলো করেছি তা সফলভাবে এবং আন্তরিকতা ও দেশপ্রেম নিয়েই করেছি। আমি আপনাদেরই লোক এবং আমাকে এভাবেই ভাবা উচিত।

শনিবার (২৯ জুলাই) রাজধানীর ইয়ন কনভেনশন সেন্টারে BAPCA  (Bangladesh Aqua Product Companies Association) -এর বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাপকা’র উপদেষ্টা এবং কক্সবাজার-২ আসনের (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসনের সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক। সংগঠন তৈরি এবং রেজিস্ট্রেশন সহ অন্যান্য অর্জনের জন্য এ সময় তিনি বাপকা’ প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদকসহ সংশ্লিষ্ঠ সদস্যগণের ভূয়সি প্রশংসা করেন।

বার্ষিক সাধারণ সভায় বক্তব্য রাখছেন বাপকা’র নির্বাহী সদস্যগণ ছাড়াও অন্যান্য সাধারণ সদস্যগণ।

মৎস্যখাতে রপ্তানিকে এখন প্রাধান্য দেয়া উচিত উল্লেখ করে সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক বলেন, এর ফলে আমাদের বৈদেশিক মুদ্রা যেমন বাড়বে, তেমনই তৃণমূল মৎস্যচাষিদের সম্পৃক্ত করা যাবে; এবং এতে করে তাদের আয় ও দক্ষতা বাড়বে। এজন্য মৎস্যখাতের যতগুলো সংগঠন আছে, সবাইকে একই সুরে কথা বলতে হবে।

প্রধান অতিথি বলেন, চিংড়ি খাতে আমাদের সংকট রয়েছে কিন্তু সাদা ও অন্যান্য মাছের ক্ষেত্রে আমাদের অনেক ইতিবাচক অর্জন রয়েছে। আমাদের একটি বড় সমস্যা হলো সঠিক জায়গায় সঠিক লোকগুলো থাকে না; আর এ কারণে প্রান্তিকদের অনেক কথা সঠিক জায়গায় পৌঁছে না। এসব জায়গাগুলোতে নিশ্চয়ই আমরা কাজ করবো।

বার্ষিক সাধারণ সভায় বাপকা’র সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান সংগঠনের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও অর্জন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন। এসআরও তে এবং সংগঠন হিসেবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে বাপকা’র অন্তর্ভুক্তি সম্পর্কে নানা চড়াই, উৎড়াই, বাধাবিপত্তির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরেন। বাপকা’কে আরো শক্তিশালী, কার্যকর ও সেক্টরবান্ধব হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সবাইকে নিয়ে আন্তরিকভাবে কাজ করবেন বলে তিনি জানান।

এক পর্যায়ে তিনি বাপকা’র সদস্য ফি ও বার্ষিক চাঁদা বৃদ্ধির প্রস্তাব করেন এবং সর্বসম্মতিক্রমে তা পাশ হয়। এছাড়াও তিনি নির্বাহী কমিটির নির্বাচনের সম্ভাব্য সময় নিয়ে আলোচনা করেন।

অনুষ্ঠানে বাপকা’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোহাম্মদ তারেক সরকার বলেন, সংগঠনের রেজিস্ট্রেশন করতে যেয়ে আমাদের কিছু অপ্রত্যাশিত বাধা বিপত্তি ছিল; সেই প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করার ক্ষেত্রে এখানে উপস্থিত এমপি সাহেব ও অন্যান্য সদস্যগণ যথেষ্ট সময়, শ্রম ও আন্তরিকতা দেখিয়েছেন। সংগঠনকে শক্তিশালী এবং সদস্যদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে দেখভালের জন্য আমরা সম্মিলিতভাবে কাজ করে এগিয়ে যাবো।

বার্ষিক সাধারণ সভায় ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের আয়-ব্যয়ের  হিসেব তুলে ধরেন বাপকা কোষাধ্যক্ষ সনাতন ঘোষ। এছাড়াও এ সময় তিনি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উত্থাপন করেন যা উপস্থিত সদস্যগণের সর্বসম্মতিক্রমে পাশ হয়।

সভায় সাধারণ সদস্যগণের জন্য উন্মুক্ত আলোচনার আয়োজন করা হয় এবং সদস্যগণ বিভিন্ন মতামত, পরামর্শ প্রদান করেন।

বার্ষিক সাধারণ সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাপকা সভাপতি ইয়াহিয়া সোহেল, সহ সভাপতি মোহাম্মদ আফতাব আলম ও জুবায়ের আব্দুল্লাহ্ জামান, এমএ এ হাসান পান্না, যুগ্ম সম্পাদক মো. মনিরুল হক খান, নিজামউদ্দিন মাহমুদ সেলিম, এম এ সামাদ প্রমুখ।

সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করেন বাপকা’র সাংগঠনিক সম্পাদক মো. খায়রুল কবির। নির্বাহি সদস্য জামিল হোসেনের ধন্যবাদ জ্ঞাপনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।

This post has already been read 2127 times!