Thursday 1st of December 2022
Home / পোলট্রি / বিশ্বকাপ একদিন আমরাই নিবো, ভাতের সাথে প্রোটিন খাবো

বিশ্বকাপ একদিন আমরাই নিবো, ভাতের সাথে প্রোটিন খাবো

Published at নভেম্বর ১০, ২০২২

কুষ্টিয়ায় প্রোটিন সচেতনতায় সাইকেল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত

কুষ্টিয়া : “এ জীবন তোমার-আমার, প্রোটিন সবার অধিকার”; “ডিম মাংস দুধ খেলে, সকল প্রকার পুষ্টি মেলে; “বিশ্বকাপ একদিন আমরাই নিবো, ভাতের সাথে প্রোটিন খাবো”- এমন স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেছিল কুষ্টিয়া শহরের আজকের সকাল। উজ্জ্বল হলুদ রঙের টি-শার্ট পরিহিত কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থীর দীর্ঘ সাইকেল শোভাযাত্রা উৎসুক করে তুলেছিল কুষ্টিয়ার সাধারন মানুষদের। জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের সামনে থেকে শুরু হওয়া এ র‌্যালী শহরের পাঁচমাথা হয়ে পুনরায় প্রাণিসম্পদ অফিসে এসে শেষ হয়। বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাষ্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল (বিপিআইসিসি), কুষ্টিয়া জেলা প্রাণিসম্পদ অফিস এবং ইউএস সয়াবিন এক্সপোর্ট কাউন্সিল (ইউএসএসইসি) যৌথভাবে এ শোভাযাত্রার আয়োজন করে।

সাইকেল শোভাযাত্রার প্রধান অতিথি, কুষ্টিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. হায়াত মাহমুদ বলেন, সুস্থ্য জীবন লাভ করতে হলে পর্যাপ্ত পরিমানে প্রোটিন গ্রহণ করতে হবে। তিনি বলেন, লম্বা, শক্তিশালী ও বুদ্ধিমান হতে হলে, দীর্ঘ জীবন লাভ করতে হলে- ডিম, দুধ, মাছ, মাংস ইত্যাদি পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। অনেকেই নানা কাজে অর্থ অপচয় করেন কিন্তু তার সামান্য অংশ খরচ করলেই একটি ডিম কিংবা এক গ্লাস দুধ কিনতে পারা যায়। তিনি বলেন, প্রোটিন খাদ্য গ্রহণের অভ্যাস তৈরি করতে হবে; পরিবারে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ বিষয়ে সঠিক জ্ঞান দিতে হবে। তবেই জাতি হিসেবে আমরা উন্নত হতে পারব।

কুষ্টিয়া জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো. সিদ্দীকুর রহমান বলেন, ভাতের ওপর আমরা অতিমাত্রায় নির্ভরশীল। প্রোটিন আমাদের শরীরের জন্য কতটা জরুরি তা অনেকেই জানিনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অপুষ্টির অভিশাপ থেকে দেশকে মুক্ত করতে বদ্ধপরিকর। সে কারণেই তিনি ভাতের পাশাপাশি পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণের তাগিদ দিয়েছেন। মূলত: এ লক্ষ্য বাস্তবায়ন করতেই প্রোটিন সচেতনতা বাড়াতে সরকার ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো এ হয়ে কাজ করছে।

ইউএসএসইসি’র বাংলাদেশ প্রতিনিধি খবিবুর রহমান কাঞ্চন বলেন, প্রোটিন খেতে হবে এবং কম দামের প্রোটিনের সহজলভ্যতা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, মাত্র ১১-১২ টাকায় একটি ডিম পাওয়া যায়। সয়াবিন দিয়ে তৈরি বিভিন্ন ধরনের খাবার প্রতিবেশি দেশগুলো বেশ জনপ্রিয় হলেও বাংলাদেশে তা এখনও জনপ্রিয় হয়ে উঠেনি। অথচ এটি অত্যন্ত পুষ্টিকর এবং দামেও সস্তা। তাই দুর্মূল্যের বাজারে সয়াবিনও হতে পারে প্রোটিনের ভাল উৎস্য।

বিপিআইসিসি’র সেক্রেটারি দেবাশিস নাগ বলেন, আমরা একটি সংকটময় সময়ের মধ্য দিয়ে চলেছি। আমাদের এ প্রিয় পৃথিবী খাদ্য সংকট ও অর্থ সংকটের মাঝে পড়তে যাচ্ছে বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে। অপুষ্টির হার যেন না বাড়ে, মানুষ যেন তার নূন্যতম খাদ্য ও পুষ্টি চাহিদা পূরণ করতে পারে সেদিকে নজর দিতে হবে। ডিম, দুধ, মাছ, মাংস যেন সাধারণ মানুষের সাধ্যের নাগালে থাকে সেজন্য সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে। ডলার সংকটের কারণে প্রাণিখাদ্যের অত্যাবশ্যকীয় উপকরণসমূহের আমদানি বন্ধ কিংবা বাধাগ্রস্ত হলে ভয়াবহ বিপর্যয় ঘটবে। তাই এ ধরনের পণ্য আমদানিতে অগ্রাধিকার দিতে হবে।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে বলা হয়- খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থানের মত প্রোটিনও আমাদের মৌলিক অধিকারের অংশ। এ অধিকার সবার জন্য নিশ্চিত করতে হবে। ২০৪১ সালের উন্নত বাংলাদেশ গড়তে হলে প্রোটিন কনজাম্পশন অনেকটাই বাড়াতে হবে। সেজন্য বেসরকারি উদ্যোক্তারা কাজ করছেন, সরকার সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করছেন। বিপিআইসিস এবং ইউএসএসইসি প্রোটিন সচেতনতা বাড়াতে দেশব্যাপী কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি জেলা শহরে সচেতনতামূলক কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে, পর্যায়ক্রমে সারাদেশেই এ কার্যক্রম বিস্তৃত করা হবে।

This post has already been read 328 times!