Friday 19th of August 2022
Home / অন্যান্য / কাজী ফার্মস গ্রুপের এমডি কাজী জাহেদুল হাসানসহ ৪ জন কারাগারে

কাজী ফার্মস গ্রুপের এমডি কাজী জাহেদুল হাসানসহ ৪ জন কারাগারে

Published at জুলাই ১৮, ২০২২

কাজী জাহেদুল হাসান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি), কাজী ফার্মস গ্রুপ।

এগ্রিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় করা মামলায় কাজী ফার্মস গ্রুপ ও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল দীপ্ত টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কাজী জাহেদুল হাসানসহ চার জনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন চট্টগ্রামের সাইবার ট্রাইব্যুনাল।

সোমবার (১৮ জুলাই) দুপুরে চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক জহিরুল কবির এ আদেশ দেন। সাবেক প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি এবং তার ছেলেকে নিয়ে দীপ্ত টেলিভিশনে একটি সংবাদ প্রকাশের জেরে ছয় বছর আগে মামলাটি করা হয়েছিল। বেলা ১১টার দিকে আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন আসামিরা। জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালের সরকারি কৌঁসুলি শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী বলেন, ‘দুপুরে শুনানি শেষে আসামিদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। বিকালে তাদের কারাগারে নিয়ে যায় পুলিশ।’

কারাগারে যাওয়া চার জন হলেন— কাজী ফার্মস গ্রুপ ও দীপ্ত টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী জাহেদুল হাসান, পরিচালক কাজী জাহিন হাসান ও কাজী রাবেত হাসান, চিফ অপারেটিং কর্মকর্তা কাজী উরফি আহমেদ।

এর আগে চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালে হাজির হওয়ার শর্তে গত ৫ জুন উচ্চ আদালত তাদের ছয় সপ্তাহের জামিন দিয়েছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের ১৬ ও ২২ মার্চ দীপ্ত টিভিতে তৎকালীন মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি ও তার ছেলে মুজিবর রহমানকে নিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়। এতে তাদের সম্মানহানি হওয়ার অভিযোগ তুলে একই বছরের ৫ এপ্রিল তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় চট্টগ্রামের চকবাজার থানায় মামলাটি করা হয়। মামলাটি করেন নুরুল ইসলামের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান সানোয়ারা গ্রুপের ব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর আলম।

মামলায় কাজী জাহেদুল হাসান, কাজী জাহিন হাসান, কাজী উরফি আহমেদ ও টেলিভিশনটির চট্টগ্রামের নিজস্ব প্রতিবেদক রুনা আনসারীকে আসামি করা হয়।

আসামিপক্ষের আইনজীবী ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সাবেক মন্ত্রীপুত্র কর্তৃক এক প্রবাসীর জমি দখলকে কেন্দ্র করে দীপ্ত টিভিতে একটি সংবাদ প্রকাশের জেরে মামলাটি করা হয়েছিল। মামলায় আসামিপক্ষের চার জন সাইবার ট্রাইব্যুনালে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। আদালত শুনানি শেষে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। আমরা এ মামলায় রিভিউ পিটিশন দিয়েছিলাম। মঙ্গলবার শুনানির জন্য দিন ধার্য রেখেছেন আদালত।’

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন।

This post has already been read 7395 times!