Wednesday 18th of May 2022
Home / অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য / মোংলা সমুদ্র বন্দরে রাজস্ব আদায়ে নতুন রেকর্ড

মোংলা সমুদ্র বন্দরে রাজস্ব আদায়ে নতুন রেকর্ড

Published at জুলাই ৪, ২০২১

ফকির শহিদুল ইসলাম (খুলনা) : দেশের অন্যতম সমুদ্র বন্দর মোংলা নতুন রেকর্ড গড়েছে। বিদায়ী অর্থবছর ২০২০-২১ সালে সর্বোচ্চ ৯৭০টি দেশী-বিদেশী বানিজ্যিক জাহাজ আগমনের ফলে এই রেকর্ড করে বন্দরটি। এ সময়ে মোংলা বন্দরে রেকর্ড পরিমান পণ্য হ্যান্ডলিংও (ওঠানামা) হয়েছে। গেল অর্থ বছরে ১ কোটি ১৯ লক্ষ মেঃ টন পণ্য খালাস করেছিল মোংলা বন্দর। এতে রাজস্ব আয় হয়েছে ৩৪০ কোটি টাকা। যা থেকে বন্দর নীট মুনাফা আয় করে ১৩০ কোটি টাকা। এখানে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১শ’ এক কোটি টাকা। এটি ল্যমাত্রার চেয়ে ২৯ কোটি টাকা বেশি আয় করলো মোংলা সমুদ্র বন্দর।

মোংলা বন্দর কর্তৃপরে চেয়ারম্যান রিয়ার এ্যাডমিরাল মোহাম্মদ মুসা আজ রবিবার (০৪ জুলাই) বন্দরের সভাকে সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ৯০ দশকে মোংলা বন্দর মৃত্যু বন্দরে পরিনত হয়েছিল। সেই মৃত বন্দরকে একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিনত করা হয়েছে। এ বন্দর এখন বিশ্ব বাজারের কাছে একটি বানিজ্যিক বন্দরে পরিনত হয়েছে। এখান থেকে সরকার এখন কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় করছে। কর্মসংস্থান হচ্ছে হাজার হাজার মানুষের, এখানের বন্দর ব্যবহারকারীদের আর অন্য বন্দরে গিয়ে ব্যবসা করতে হয়না। আরো অন্য বন্দরের ব্যাবসায়ীরা মোংলা সমুদ্র বন্দর ব্যবহার করতে আগ্রহী হচ্ছে। এছাড়া বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি সরকারের মেগা প্রকল্পের পন্য এ বন্দর দিয়ে খালাস হচ্ছে, যা আগামীতে এ বন্দর বিশ্বের কাছে একটি পরিবেশ বান্ধব ও আধুনিক বন্দর হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে বলে আশা করেন বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এ্যাডমিরাল মোহাম্মাদ সুসা।

বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (ট্রাফিক) মোস্তফা কামাল বলেন, ২০২০-২১ অর্থ বছরে বন্দরে আগত ৯৭০টি জাহাজ থেকে ১১৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ পণ্য খালাস হয়। এছাড়া ৪৩ হাজার ৯৫৯ টিইইউজ কন্টেইনার হ্যান্ডলিং হয় এবং ১৪ হাজার ৪৭৪ টি রিকন্ডিশন গাড়ী আমদানি হয় এ বন্দরে। তবে এসব গাড়ির ৪০ শতাংশ খালাসও হয়েছে বলে দাবি করে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

করোনাকালীন সময়ে নয়টি মেগা প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে জানিয়ে এদিন বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, বন্দর উন্নয়নে মাষ্টার প্লান তৈরীর কাজ চলছে এবং এটি বাস্তবায়ন হলে মোংলা বন্দর দেশের অর্থনীতি ও আমদানি রপ্তানি বাণিজ্যে ব্যপক ভূমিকা রাখতে সম হবে। একই সাথে আগামী অর্থ বছরে এই বন্দরে এক হাজারেরও অধিক জাহাজ আগমনসহ ৩৬০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন বন্দর চেয়ারম্যান।

২০২০-২১ অর্থ বছরে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের অর্জন উপলে সংবাদ সম্মেলনে সদস্য (হারবার ও মেরিন) ক্যাপ্টেন এম আবদুল ওয়াদুদ তরফদার, পরিচালক (প্রশাসন) মোঃ শহিনুর আলম, হারবার মাষ্টার কমান্ডার শেখ ফখর উদ্দিন, প্রধান অর্থ ও হিসাব রন কর্মকর্তা মোঃ সিদ্দিকুর রহমান, পরিকল্পনা প্রধান জহিরুল হক, পরিচালক (ট্রাফিক) মোস্তফা কামাল, উপ প্রধান প্রকৌশলী মোঃ মাহাবুবুর রহমান মিনা ও বন্দর চেয়ারম্যানের একান্ত সচিব মোঃ নিয়ামুর রহমানসহ বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

This post has already been read 590 times!