Friday 19th of April 2024
Home / মৎস্য / আগামী ১০-১৬ মার্চ ‘জাতীয় জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ

আগামী ১০-১৬ মার্চ ‘জাতীয় জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ

Published at ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও ১০ থেকে ১৬ মার্চ পর্যন্ত ‘জাতীয় জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ-২০১৯’ পালিত হবে ইলিশ-অধ্যুষিত ৩৭টি জেলায়। এবার সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠিত হবে ভোলা জেলার চরফ্যাশনে। উদ্বোধনের পরই মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরুর নেতৃত্বে নদীতে অনুষ্ঠিত হবে বিশাল এক নৌ-র‍্যালি।

জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহের এবারের শ্লোগান নির্ধারিত হয়েছে “অবৈধ জাল ফেলবো না, জাটকা-ইলিশ ধরবো না’’।

সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ উদযাপনের লক্ষে অনুষ্ঠিত ‘ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত জাতীয় টাস্কফোর্স” এর এক সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সভায় সাত দিনের বিস্তারিত কর্মসূচি নেয়া হয়। ১০ মার্চ মৎস্য অধিদফতরের সম্মেলনকক্ষে প্রতিমন্ত্রী সপ্তাহের বিস্তারিত তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতা করবেন। এদিন জাতীয় পত্রিকায় ক্রোড়পত্রও প্রকাশিত হবে। ১১ মার্চ প্রতিমন্ত্রী ভোলা জেলার চরফ্যাশনে সপ্তাহের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করে নদীতে বর্নাঢ্য নৌ-র‍্যালির নেতৃত্ব দেবেন।

সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে সংশ্লিষ্ট ৩৭টি জেলাসহ উপজেলায় সচেতনতামূলক ভিডিওচিত্র প্রদর্শন, টিভি-রেডিওতে প্রচারণা, ঢাকার বিভিন্ন স্থানে জাটকা সংরক্ষণ আইনের প্রচারের পাশাপাশি পুলিশি অভিযান চালানোসহ সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোতেও ব্যাপক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হবে।

টাস্কফোর্স-সভায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী দেশকে শুধু সম্পদশালী নয় বঙ্গবন্ধুর ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’র স্বপ্ন বাস্তবায়নেও মাছের উৎপাদন আরো বাড়ানোর ওপর জোর দেন। তিনি জাটকাসহ অন্যান্য মাছের বংশ ধ্বংসকারী জালসমূহ সমূলে উৎপাটনের জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান। অবৈধ জাল ব্যবহারকারীদের আটকের পর মুক্তির ব্যাপারে কোনো চাপের কাছেও মাথানত না করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

সভায় মন্ত্রণালয়ের সচিব রইছউল আলম মণ্ডলসহ মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দফতরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং টাস্কফোর্সের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

This post has already been read 1649 times!