Tuesday 9th of August 2022
Home / অন্যান্য / কৃষি প্রযুক্তি বিস্তারে মিডিয়ার সেবা অনন্য

কৃষি প্রযুক্তি বিস্তারে মিডিয়ার সেবা অনন্য

Published at নভেম্বর ১, ২০১৭

নাহিদ বিন রফিক (বরিশাল): কৃষি প্রযুক্তি বিস্তারে মিডিয়ার সেবা অনন্য। ফসলের উন্নত জাত নির্বাচন, সার ব্যবস্থাপনা, রোগ-পোকা নিয়ন্ত্রণসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো চাষিদের দোরগোড়ায় পৌঁছানো কৃষি বিভাগের প্রধান দায়িত্ব। আর এসব কাজ সম্প্রসারণে আমাদের পাশাপাশি বেতার এবং অন্যান্য গণমাধ্যমগুলো রাখতে পারে বিরাট ভূমিকা। সোমবার (৩০ অক্টোবর) বরিশাল নগরীর খামারবাড়িস্থ ডিএই সম্মেলনকক্ষে বাংলাদেশ বেতার বরিশালের কৃষি বিষয়ক আঞ্চলিক অনুষ্ঠান ‘চাষবাস’ সম্পর্কিত ত্রৈমাসিক প্রান্তিক সভায় সভাপতির বক্তৃতায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর; বরিশালের উপপরিচালক রমেন্দ্র নাথ বাড়ৈ এসব কথা বলেন।

IMG_20171030_102745কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বেতার বরিশালের আঞ্চলিক পরিচালক এস. এম. জাহিদ হোসেন। টেকনিক্যাল পার্টিসিপেন্ট নাহিদ বিন রফিকের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বরিশালের জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার একরামুল করিম চৌধুরী, বরগুনার জেলা মৎস্য অফিসার ড. মো. ওয়াহিদুজ্জামান, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের যুগ্ম পরিচালক ড. এ. কে. এম. মিজানুর রহমান, আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. গোলাম কিবরিয়া, আঞ্চলিক কৃষি তথ্য অফিসার মো. শাহাদাত হোসেন, বরিশালের গৌরনদীর উপজেলা কৃষি অফিসার মো. নজরুল ইসলাম, মুলাদীর উপজেলা কৃষি অফিসার মো. খায়রুল ইসলাম মলি¬ক, বরিশাল সদরের উপজেলা কৃষি অফিসার সাবিনা ইয়াসমিন, মেহেন্দিগঞ্জের উপজেলা কৃষি অফিসার মো. রেজাউল হাসান, কৃষি প্রকৌশলী মো. মশিউর রহমান, কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের প্রশিক্ষক মার্জিন আরা মুক্তা, জেলা মার্কেটিং অফিসার মো. লিয়াকত আলী, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শেখ মনিরুজ্জামান, বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সির বীজ বিশে¬ষক চপল কৃষ্ণ নাথ, বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউটের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. নিয়াজ মোর্শেদ প্রমুখ।

ahcab finalসভায় চাষবাস অনুষ্ঠানের কথক ও কথিকা নির্বাচন করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানকে আরো প্রাণোবন্ত করার লক্ষ্যে সময় ও দিনের সংখ্যা বাড়ানো, আসরভিত্তিক, ফোন-ইন-প্রোগ্রাম চালুসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা হয়। অনুষ্ঠানে জিও-এনজিও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৬০ জন কর্মকর্তা অংশগ্রহণ করেন।

This post has already been read 1728 times!