কৃষি ও খাদ্য নিরাপদতা বিষয়ক গ্রন্থ “আমার দেশের মাটির গন্ধ’ এর মোড়ক উন্মোচিত

সমৃদ্ধ, নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য ব্যবস্থাপনায় টেকসই রূপান্তরের লক্ষ্যে রেজাউল করিম সিদ্দিক কর্তৃক নিজের ৪০ বছরের কর্মজীবনের অভিজ্ঞতালদ্ধ গ্রন্থ “আমার দেশের মাটির গন্ধ” এর মোড়ক উন্মোচিত হয়েছে। বইটির রচয়িতা বাংলাদেশ টেলিভিশনের অন্যতম জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘মাটি ও মানুষ’ এর সঞ্চালক হিসেবে কাজ করছেন।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীতে শনিবার (০১ জুন)  ‘আমার দেশের মাটির গন্ধ’ বইটির আনুষ্ঠানিক মোড়ক উন্মোচন করেন দেশের কৃষি ও সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাবেক কৃষি সচিব ও বিসেফ ফাউন্ডেশন এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আনোয়ার ফারুক। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন গ্রন্থটির প্রকাশক ও কারুকাজ প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী আমিরুল ইসলাম মুকুল, উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদ এর সভাপতি বদিউর রহমান, ইউসিবি ব্যাংকের অতিরিক্ত মহা-ব্যবস্থাপক এটিএম তাহমিদুজ্জামান, কৃষি অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, কৃষি বিজ্ঞানী ড. ওয়ায়েস কবীর, ড. আমজাদ হোসেন, বাংলা একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার প্রাপ্ত কথা সাহিত্যিক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসহাক খান, লেখক চির রঞ্জন সরকার, প্রমুখ। অনুষ্ঠানে নিজের অভিজ্ঞতা ও বইটির রচনার প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন লেখক রেজাউল করিম সিদ্দিক।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের বিকাশমান অর্থনীতিতে কৃষিখাত খুবই সম্ভাবনাময় এবং টেকসই। আবার অন্যদিকে বাংলাদেশের কৃষিখাত সবচেয়ে অবহেলিত। টেকসই খাদ্য ব্যবস্থাপনা তথা সকলের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হলে কৃষিখাতকে রাষ্ট্রীয় পরিকল্পনায় অগ্রাধিকার দিতে হবে। কৃষি উৎপাদনে ভুর্তকি অব্যাহত রেখে খাদ্য পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ করতে হবে যাতে স্বল্প আয়ের মানুষের খাদ্য ও পুষ্টি চাহিদার যোগান ব্যাহত না হয়। আমাদের মনে রাখা প্রয়োজন, করোনা পরবর্তি অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে সবকিছু বন্ধ হলেও বাংলাদেশের কৃষক জীবন বাজী রেখে মানুষের খাদ্য যুগিয়েছেন। মহান মুক্তিযুদ্ধেও আমাদের কৃষক সমাজ শত সঙ্কট সত্বেও খাদ্য উৎপাদন করেছেন। কিন্ত তবু অবহেলিত কৃষি ও কৃষক। কৃষি বিশ্লেষক রেজাউল করিম সিদ্দিক কৃষকের সেই বঞ্চনার কথা ফুটিয়ে তুলেছেন ‘আমার দেশের মাটির গন্ধ’ বইটিতে। জাতীর প্রচার মাধ্যম বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত ‘মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনার সুবাদে দেশের প্রায় প্রতিটি উপজেলায় তিনি কৃষকের সাথে কথা বলে, তাদের মাঠে সরেজমিন দেখে যে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছেন, সেগুলোই ফুটে উঠেছে তাঁর গ্রন্থে। বাংলাদেশের কৃষির বিকাশ, কৃষকের কল্যাণ এবং সবার জন্য নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিতে রেজাউল করিম সিদ্দিক এর ভাবনাসমূহ সংশ্লিষ্ট মহলের চিন্তার খোরাক হতে পারে।

চলমান বৈশ্বিক সংঘাতময় পরিস্থিতি ও জলবায়ূ পরিবর্তনের ফলে খাদ্য উৎপাদন সঙ্কট এবং বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার বাস্তবতায় সরকারসহ দেশের সর্বস্তরের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। রূপান্তর ঘটাতে হবে দেশের সামগ্রিক কৃষি ও খাদ্য ব্যবস্থায়। কৃষকের পাশে দাঁড়াতে হবে। কৃষি বাঁচলে বাংলাদেশ বাঁচবে। আগামীদিনের কৃষিতে তরুণদের সম্পৃক্ত করতে হবে। কৃষিকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য বা অবহেলার চোখে দেখার মনোজগতে পরিবর্তন আনতে হবে।

This post has already been read 334 times!

Check Also

মৎস্য অধিদপ্তরের নবনিযুক্ত মহাপরিচালকের সাথে এসিআই এনিমেল হেলথ প্রতিনিধিবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ

এগ্রিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: মৎস্য অধিদপ্তরের নবনিযুক্ত মহাপরিচালক সৈয়দ মো. আলমগীর এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন এসিআই …