Friday 19th of April 2024
Home / uncategorized / মাছ চাষে স্মার্ট প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে এসিআই

মাছ চাষে স্মার্ট প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে এসিআই

Published at জুলাই ২৪, ২০২৩

মাছ চাষে বাংলাদেশের সফলতা অনেক, এই সফলতাকে ধরে রেখে মাছ চাষকে আরও বেগবান করতে হলে মৎস্য চাষ তথা মৎস্যচাষীদেরকে লাভবান করতে হবে। ধারাবাহিকভাবে মাছ চাষকে লাভজনক পেশা হিসেবে গড়ে তুলতে হলে আমাদেরকে কিছু বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। প্রথমে বলতে হবে আদর্শ পুকুর ব্যবস্থাপনার কথা। যদি সঠিক পদ্ধতি মেনে পুকুর ব্যবস্থাপনা করা যায়, বিশেষ করে যথাযথ নিয়ম মেনে সঠিক মজুদ ঘনত্বে পোনা মজুদকরন, নিয়মিত নমুনায়ন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা, সুষম খাবার ব্যবস্থাপনা করা যায় তবে মাছ চাষে সফলতা অবশ্যম্ভাবী।

পুকুর ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে চাষকালীন সময়ে দ্রবীভূত অক্সিজেন (DO) এর পরিমান ঠিক রাখা এবং তা করতে সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে অন্যথায় ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হতে হবে। অপরদিকে আমাদেরকে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে FCR উন্নত করার দিকে। পুকুরে যদি পর্যাপ্ত প্রাকৃতিক খাবারের মজুদ থাকে তবে সঠিক মজুদ ঘনত্বে নির্ধারিত মাত্রায় খাদ্য প্রয়োগে সর্বোচ্চ উৎপাদন সুনিশ্চিত হবে, ফলশ্রুতিতে প্রয়োগকৃত খাবারের FCR উন্নীত হবে। ফলন যত ভালো হবে ততই উদ্বৃত্ত মাছ ও চিংড়ি- এর রপ্তানি খাতে সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং মাছ ও চিংড়ি হতে নিত্যনতুন Value added product তৈরির নতুন ব্যবসার সম্ভাবনা আরও উজ্জ্বল হবে।

সেক্ষেত্রে আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে যে আমাদের দেশে উৎপাদিত রপ্তানিযোগ্য মাছ ও চিংড়ি যেন যথাযথ স্ট্যান্ডার্ড এর হয় যেমন- তেলাপিয়ার ক্ষেত্রে তা যেন দুর্গন্ধ মুক্ত হয়, এ্যান্টিবায়োটিক ও জীবাণুমুক্ত হয়, অপরদিকে বিশ্ববাজারে পাঙ্গাশ এর ক্ষেত্রে হোয়াইট ম্যাসল ফিলে (Fillet) এর ব্যপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। পুকুরের ব্যবস্থাপনায় ত্রুটি থাকলে এবং চাষ পুকুরের পানি নষ্ট হয়ে গেলে এ ধরণের দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়, আর এ কারনেই আদর্শ পুকুর ব্যবস্থাপনার কোন বিকল্প নেই।

আমি মেহেদী ইসলাম, মার্কেটিং ম্যানেজার, এ সি আই এ্যাকুয়াকালচার, এসিআই এনিম্যাল হেলথ এর পক্ষ হতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২৩ এর সফলতা কামনা করছি। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় তথা স্লোগান হলো নিরাপদ মাছে ভরবো দেশ, গড়বো স্মার্ট বাংলাদেশ। আর এই স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে আমরা বাংলাদেশে আদর্শ পুকুর ব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন স্মার্ট প্রযুক্তি নিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি। সারাদেশে আমাদের প্রায় ৪০ জন অ্যাকুয়া সার্ভিসেস অফিসার রয়েছেন যারা খামারির দোরগোড়ায় গিয়ে তাদের পুকুর ও মাছের স্বাস্থ্য নিরীক্ষণের (তাদের সবার কাছে DO, ammonium, pH test kits, Soil pH and moisture meter I Digital Microscope থাকে) পরে যথাযথ সময়োপযোগী স্মার্ট সমাধান প্রদান করার মাধ্যমে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে পদক্ষেপ রাখছে।

This post has already been read 1696 times!