Thursday 19th of May 2022
Home / শিক্ষাঙ্গন / ৫০ ভাগের বেশি ছাত্রী ভর্তিই প্রমাণ করে নারী শিক্ষায় সরকার সফল -বাকৃবিতে শিক্ষা উপমন্ত্রী

৫০ ভাগের বেশি ছাত্রী ভর্তিই প্রমাণ করে নারী শিক্ষায় সরকার সফল -বাকৃবিতে শিক্ষা উপমন্ত্রী

Published at জানুয়ারি ১৯, ২০২০

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, এম.পি।

মো. আরিফুল ইসলাম (বাকৃবি): বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) এবার ৫০ ভাগের অধিক ছাত্রী ভর্তি হয়েছে। দেশে নারী শিক্ষার প্রসারে বর্তমান সরকারের গৃহীত নানা পদক্ষেপের ফলেই নারীরা সব ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে। বাকৃবিতে এ অধিক সংখ্যক নারী শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়াই প্রমাণ করে নারী শিক্ষার অগ্রগতিতে সরকার সফল। রবিবার (১৯ জানুয়ারি) বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে স্নাতক প্রথমবর্ষের ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা জনগণের টাকায় শিক্ষা অর্জন করে। এজন্য জনগণের প্রতি তাদের দায়িত্ব অনেক। সুনাগরিক হয়ে দেশের জন্য কাজ করার মাধ্যমেই জনগণের এ ঋণ শোধ করা সম্ভব। বর্তমান সরকার শিক্ষার জন্য অনেক বেশি আন্তরিক।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. ছোলায়মান আলী ফকিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো জসিমউদ্দিন খান এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব সুভাষ সিংহ রায়।

অনুষ্ঠানে বাকৃবির উপচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান বলেন, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) চত্বরেই বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদদের প্রথম শ্রেণির মর্যাদার কথা ঘোষণা করেন। তিনি বলেছিলেন ‘আমি তোদের সম্মান দিলাম তোরা তার মর্যাদা রাখিস’। সেই মর্যাদাকে সমুন্নত রেখেছে কৃষিবিদ গ্র্যাজুয়েটরা। যেখানে মানুষ আগে তিন বেলা অন্ন যোগান করতে পারতো না সেই বাংলাদেশ আজকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। দেশের চাহিদা মিটিয়ে বাংলাদেশ আজ খাদ্য বিদেশেও রপ্তানি করছে।

অনুষ্ঠানে নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য প্রদান করেন- ডিন কাউন্সিলের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. নুরুল ইসলাম, প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. আজহারুল হক। এ সময় নবীন শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকবৃন্দ, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

This post has already been read 1363 times!