Saturday 28th of January 2023
Home / অন্য দেশের কৃষি / সাদা মাছি দমনে জৈব নির্যাসে ভরসা রাখার পরামর্শ ভারতীয় কৃষি বিজ্ঞানীদের 

সাদা মাছি দমনে জৈব নির্যাসে ভরসা রাখার পরামর্শ ভারতীয় কৃষি বিজ্ঞানীদের 

Published at ডিসেম্বর ২০, ২০১৯

সাদামাছি পোকা।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ফসলে সাদা মাছি দমনে নিমতেল ও নিমের নির্যাসের পাশাপাশি জৈব ওষুধের উপর ভরসা রাখতে বলছেন ভারতের কৃষি বিশেষজ্ঞরা। বাজার চলতি যেকোনও কীটনাশক কিনে হঠাৎ করে প্রয়োগ করলে ফল উল্টো হতে পারে বলে জানিয়েছেন তাঁরা। সেক্ষেত্রে ফলন মার খাওয়া ছাড়াও মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে গাছের। ফলে এবিষয়ে সজাগ থেকেই ব্যবস্থা নিতে হবে বলে মত কৃষি বিজ্ঞানীদের।

বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. পার্থপ্রতিম ধর জানিয়েছেন, তাঁরা বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সাদামাছিকে নিধন করতে চাইছেন। এই মাছি মারতে গিয়ে তাঁরা দেখেছেন, গাছে থাকা অনেক বন্ধুপোকা এদের সঙ্গে লড়াই করছে। অতএব, বন্ধুপোকা বাঁচিয়ে রেখেই এই সাদামাছি নিধনের পথ খুঁজতে হবে। আপতকালীন ব্যবস্থা হিসেবে তাঁরা নিমতেল, জৈব ওষুধ ও রাসায়নিক ওষুধ দিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা চালান। তাতে দেখা গিয়েছে,বন বেগুন ও এক ধরনের ফুল গাছের নির্যাস (বাংলায় যাকে চিত্রা বলে) থেকে তৈরি ওষুধ প্রয়োগ করে ভালো ফল পেয়েছেন। ওই ওষুধের সঙ্গে সিলিকন জাতীয় আঠা মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। প্রয়োগের মাত্রা এক লিটার জলে ১ মিলি।

উল্লেখ্য, পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার চাকদহ ও হরিণঘাটা ব্লকের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে সাদা মাছির মারাত্মক দাপট দেখা দিয়েছে। এর আক্রমণে প্রাথমিকভাবে নারকেল গাছের পাতা সাদা হয়ে যাচ্ছে। পরে আক্রান্ত পাতা কালো হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে। আক্রান্ত গাছের ফল আকারে ছোট হয়ে যাচ্ছে। ডাবের ভিতরে জলের পরিমাণও কম হচ্ছে। এমনটাই জানিয়েছেন নদীয়া জেলার উপ কৃষি অধিকর্তা রঞ্জন রায়চৌধুরী।

তিনি বলেন, বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মন্ডৌরি খামারেও নারকেল বাগানে এই সাদা মাছির আক্রমণ দেখা দিয়েছে। কৃষি বিজ্ঞানীরা মাছিটিকে শণাক্ত করেছেন। এদের বৈজ্ঞানিক নাম রিগো স্পাইরালিং হোয়াইট ফ্লাই। এরা বিভিন্ন সব্জিতেও ছড়িয়ে পড়ছে। সঠিক পদ্ধতিতে এদের যাতে দমন করা যায়, তার উপায় খুঁজে বের করেছেন কৃষি বিজ্ঞানীরা।

চাকদহ ব্লকের সহ কৃষি অধিকর্তা ড. স্বপনকুমার সিংহ জানিয়েছেন, সগুনা পঞ্চায়েতের ঘোড়াগাছা গ্রাম ও তার আশেপাশের কয়েকটি গ্রাম থেকে রবিয়াল হোসেন, ফজর আলি মণ্ডল, সরিফুল মণ্ডলদের মতো কৃষকরা তাঁকে জানিয়েছেন, সাদা মাছির আক্রমণ তাঁদের নারকেল বাগান ছাড়াও ঝিঙে, পটল, লাউ, বেগুন, পেয়ারার জমিতে ছড়িয়ে পড়েছে। কৃষি বিজ্ঞানীরা এসে এই মাছির দাপট সরেজমিনে দেখে গিয়েছেন।

রানাঘাট মহকুমার সহ কৃষি অধিকর্তা (বিষয়বস্তু) শুভঙ্কর বসাক ও হরিণঘাটা ব্লক সহ কৃষি অধিকর্তা ড. প্রসূন ভৌমিক বলেন, এই সাদা মাছি নারকেল গাছের ভিতরের পাতায় আক্রমণ করে। জেলার সহ কৃষি অধিকর্তা (শস্যসুরক্ষা) ড. প্রদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, সাদামাছির আক্রমণ চাকদহ ও হরিণঘাটা এলাকায় দেখা গিয়েছে। এই মাছি নিয়ন্ত্রণে ওষুধগুলি এখনও পরীক্ষার পর্যায়ে রয়েছে। তবে ভালো কাজ হচ্ছে।

বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারতীয় নারকেল গবেষণা ও পরিকল্পনা পরিষদের অধ্যাপক ড. দীপক ঘোষ জানিয়েছেন, দক্ষিণভারতের বিভিন্ন রাজ্যে এই সাদামাছির আক্রমণ আগেই দেখা গিয়েছে। এ রাজ্যে প্রথম পূর্ব মেদিনীপুরে এর আক্রমণ লক্ষ্য করা যায়।

নদীয়ার হরিণঘাটা ব্লকের নগরউখরা ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের দেউলি গ্রাম থেকে চাষি অশোক ঘোষ তাঁর বাঁধাকপি ও ফুলকপির জমিতে সাদামাছির আক্রমণের কথা জানিয়েছেন। তিনি আক্রান্ত ফসলও নিয়ে এসেছিলেন। তবে চাষিরা যেন মোটেই নিজে থেকে কোনও রাসায়নিক ব্যবহার না করেন। তাহলে ফল উল্টো হতে পারে। গাছ ধুইয়ে স্প্রে করতে হবে।

This post has already been read 5886 times!