Tuesday 24th of May 2022
Home / খাদ্য-পুষ্টি-স্বাস্থ্য / উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসায় আলোড়ন সৃষ্টিকারী ‘নিউ ঝাং ঝি’ মাশরুম

উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসায় আলোড়ন সৃষ্টিকারী ‘নিউ ঝাং ঝি’ মাশরুম

Published at এপ্রিল ১৭, ২০১৯

তানভীর আহমেদ: উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে উচ্চ রক্তচাপ এখন একটি প্রধান জনস্বাস্থ্য সমস্যা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তথ্যমতে, ব্লাড প্রেসার বা রক্তচাপজনিত রোগের কারণে বিশ্বব্যাপী বছরে প্রায় ১৭ মিলিয়ন মানুষের মৃত্যু ঘটে, যার মধ্যে ৯.৪ মিলিয়ান মৃত্যুর জন্য উচ্চরক্ত চাপ দায়ী এবং উন্নয়নশীল দেশে শতকরা ৮০ ভাগ মৃত্যু উচ্চ রক্তচাপজনিত রোগের কারণে ঘটে থাকে। বাংলাদেশ অসংক্রামক ঝুঁকিপূর্ণ রোগের নিরীক্ষণ (এনসিডিএস) ২০১০ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী, বাংলাদেশে গড়ে শতকরা ২০ ভাগ প্রাপ্তবয়স্ক এবং শতকরা ৪০-৬৫ ভাগ বয়স্ক লোকজন উচ্চরক্তচাপে ভুগে থাকে।

বহু গবেষণায় আমাদের শরীরের এনজিওটেনসিন কনভার্টার এনজাইমকে উচ্চ রক্তচাপের জন্য দায়ী করা হয় যা আমাদের রক্তের প্লাজমা রেনিনের গতিবিধি বাড়িয়ে দেয় । গবেষকরা উচ্চ রক্তচাপের জন্য দুই ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ কারণ চিহ্নিত করেছে- ১. অপরিবর্তনযোগ্য কারণ যেমন বয়স, লিঙ্গ, এবং বংশগত নিয়ামক, ইত্যাদি। ২. পরিবর্তনযোগ্য কারণ যেমন অতিরিক্ত ওজন, মাত্রাতিরিক্ত সোডিয়াম গ্রহণ, এবং দৈহিক কার্যকলাপ হ্রাস পাওয়া ইত্যাদি।

তারা পরামর্শ দেন যে, স্বাস্থ্যকর জীবনধারা অনুশীলন এবং নিয়মিত খাদ্যসংযম উচ্চরক্তচাপ প্রতিরোধের প্রাথমিক চিকিৎসা । চিকিৎসা বিজ্ঞানে ইতোমধ্যে উচ্চ রক্তচাপ হ্রাসের জন্য বিভিন্ন ওষুধ আবিষ্কার করেছে কিন্তু এন্টি-হাইপারটেনসিভের ড্রাগের নানা প্রতিকুলতার দিক বিবেচনা করে গবেষকরা এখন নিরাপদ, কার্যকরী এবং প্রাকৃতিক উৎসের নব্য ভেষজ মাধ্যম খুঁজছেন । কিছু গবেষকরা উচ্চরক্তচাপ কমানোর বিকল্প ও পরিপূরক ওষুধীয় খাবার হিসেবে মাশরুম বা ছত্রাক খুঁজে পেয়েছেন। তারা দাবি করেছন যে, কিছু প্রজাতির মাশরুমে তারা এনজিওটেনসিন কনভার্টার এনজাইম প্রতিরোধকারী পেপটাইড সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন যা কিনা কোন প্রকার প্রতিকূলতা ছাড়াই উচ্চরক্ত চাপ কমিয়ে দেয়।

বেশ কয়েক বছর ধরে এশিয়ার অন্যতম দেশ তাইওয়ানে অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া (Antrodia cinnamomea) নামক এক প্রজাতির মাশরুম চিকিৎসা বিজ্ঞানে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করছে এবং গবেষকদের কাছে গবেষণার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হয়েছে । এটিকে প্রায়শই “ভাগ্যের ছত্রাক” নামে ডাকা হয় এবং এটি তাইওয়ানে  “নিউ ঝাং ঝি” নামে পরিচিত ।  অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া খুব বিরল প্রজাতির ছত্রাক এবং এটির চাষ সম্ভব নয়। কারণ, এটি শুধুমাত্র স্থানীয় চিরহরিৎ সিনামোমম কানহিরী (Cinnamomum kanehirae) নামক এক ধরনের প্রজাতির গাছের কান্ডের অভ্যন্তরীন অংশে জন্মে।

প্রাথমিক গবেষণায় অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়ার মধ্যে পরিপোষক উপাদান যেমন ট্রিপিনয়েডস, অ্যালকালয়েডস, পলিস্যাকারাইডস, প্রোটিন, এবং ভিটামিন ইত্যাদি সহ আরো অসংখ্য উপাদান পাওয়া গিয়েছে যা কিনা উচ্চরক্তচাপ সহ নানাবিধ রোগের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে ।  আশ্চর্যজনকভাবে, কিছু গবেষকরা অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়ার ছত্রাক দেহে এনজিওটেনসিন কনভার্টার এনজাইম প্রতিরোধকারী বৈশিষ্ট্য খুজে পেয়েছেন যা কিনা এনজিওটেনসিন-২ (একটি প্রোটিন যা লিভার, কিডনি ও ফুসফুস এর সম্মিলিত অংশ গ্রহনের মাধ্যমে প্রস্তুত হয়) পেপটাইড হরমোনের উৎপাদন কমানোর মাধ্যমে রক্তের প্লাজমা রেনিনের গতিবিধি হ্রাস করে উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে ।

২০১৪ সালের প্রথমদিকে, তাইওয়ানে একদল গবেষক পরীক্ষামূলকভাবে দুই ধরনের ইঁদুরের (উচ্চরক্তচাপ এবং স্বাভাবিক রক্তচাপ) জন্য অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া ব্যবহার করেছিলেন । তারা লক্ষ্য করলেন যে, অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়ার স্বাভাবিক রক্তচাপ সম্পন্ন ইঁদুরের ওপর কোনো প্রভাব না থাকলেও এটি  কার্যকরভাবে উচ্চ রক্তচাপসম্পন্ন ইঁদুরের রক্তচাপ কমাতে সক্ষম হয়েছে । তার দুইবছর পর ২০১৬ সালে, তাইওয়ানের বায়োটেক শিল্পে অন্যতম শীর্ষস্থানীয় খাদ্য প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান “গ্রেফ কিং বায়ো” অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়ার ক্লিনিক্যাল স্টাডি সম্পর্কে একটি গবেষণা পত্র প্রকাশ করে  এবং তারা সেখানে দাবি করেছিল যে, মৃদু উচ্চরক্তচাপ সংক্রমিত রোগীদের উচ্চ রক্তচাপ কমানোর জন্য অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়ার ছত্রাক দেহ একটি নিরাপদ বিকল্প চিকিৎসা। পরবর্তীতে এই কোম্পানী তাদের গবেষণার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে শক্তিবর্ধক পানীয় তৈরি করে । প্রাথমিকভাবে প্রতিষ্ঠানটি তাদের গবেষণার কাজের জন্য ৪১ জন উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত রোগী বাঁছাই করে, যাদের বয়স ২০ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে এবং যাদের সিস্টোলিক রক্তচাপ (৭৯-১৩০ মিলি মিটার পারদ চাপ) ও ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ (৮৫-১০৯ মিলি মিটার পারদ চাপ)।

বাঁছাইকৃত রোগীদেরকে প্রথমে দুইটি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়। প্রথম গ্রুপের (পরীক্ষামূলক গ্রুপ) ২১ জন রোগীকে ৪২০ মিলি. গ্রাম অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া সমৃদ্ধ তিনটি ক্যাপসুল এবং দ্বিতীয় গ্রুপের (কন্ট্রোল গ্রুপ- এমন একটি বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার গ্রুপ যা গবেষণা থেকে দূরে রয়ে যায় যে, এটি পরীক্ষামূলক অবস্থায় এক্সপোজার করে না। সর্বদা একটি পরিবর্তনশীল আছে যা রেকর্ড করা এবং বিশ্লেষণ করা বিষয়ের পরিবর্তনগুলোর সাথে পরীক্ষা করা হয়। একটি কন্ট্রোল গ্রুপের বিষয়গুলো এই ভেরিয়েবলের সাথে দেখা হয় না যার প্রভাব বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। এই বিষয়গুলি ভেরিয়েবলের সাথে অক্ষত থাকবে এবং ভেরিয়েবলের কারণে পরীক্ষামূলক গ্রুপের পরিবর্তন ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করবে) ২০ জন রোগীকে ৪২০ মিলি. গ্রাম স্টার্চ সমৃদ্ধ তিনটি ক্যাপসুল প্রতিদিন সেবন করার পরামর্শ দেওয়া হয়। রোগীদেরকে ৮ সপ্তাহ ব্যাপী স্থানীয় একটি হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে প্রতি দুই সপ্তাহ অন্তর এবং চিকিৎসা শেষ হওয়ার দুই সপ্তাহ পর্যন্ত রোগীদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয় ।

গবেষণা শেষে দেখা যায় যে, অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া চিকিৎসার ফলে সিস্টোলিক ব্লাড প্রেসার এবং ডায়াস্টোলিক ব্লাড পেসার ক্রমানুযায়ী তাদের বেসলাইন থেকে হ্রাস পায় যা কিনা শতকরা ১৬-৪০ ভাগ কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। গবেষকরা কন্ট্রোল গ্রুপ (স্টার্চ) সাথে তুলনা করে দেখতে পান যে, অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া কার্যকরভাবে রক্তে প্লাজমা রেনিনের সক্রিয়তা (২.৫৭ + ০.৮৮ হতে ১.৮৪ + ০.৬৬ ন্যানো গ্রাম পার মিলি লিটার পার ঘন্টা) হ্রাস করে যা ৮ম সাপ্তাহে সর্বোচ্চ শতকরা ৩৬ ভাগ। এই থেকে প্রতীয়মান হয় যে, রক্তে প্লাজমা রেনিনের সক্রিয়তা কমাতে অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া শক্তিশালী ভুমিকা রাখে এবং এটির জৈব লভ্যতা স্বল্প সময় মৌখিক চিকিৎসার পর উচ্চ রক্তচাপ কমানোর জন্য যথেষ্ট।

গবেষণায় আরো দেখা গেছে যে, ৮ সপ্তাহ চিকিৎসা পর এন্ট্রোস্টেরল সমৃদ্ধ অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া অ্যাসপারেট অ্যামিনো ট্রান্সপারেজ এনজাইম (বেসলাইন- ২৪.৩৮ + ৬.৫২ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিটস পার লিটার। গবেষনা শেষে- ২১.০৫ + ৫.১০ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিটস পার লিটার) অথবা অ্যালালিন অ্যামিনো ট্রান্সপারেজ এনজাইম (বেসলাইন -২৯.৪৮ + ১৯.২৬ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিটস পার লিটার, গবেষণা শেষে- ২৮.৯ + ২১ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিটস পার লিটার) লেভেল বৃদ্ধি করেনি যেটা অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া ছত্রাক দেহকে নন- হিপটোটক্সিক নির্দেশ  করে এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য এটি কার্যকরী , নিরাপদ এবং সহনশীল। গ্রেপ কিং বায়ো প্রতিষ্ঠানটি প্রতিদিন মানবদেহের জন্য অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়ার তরল উৎসেচক শারীরিক ওজন অনুসারে সর্বোচ্চ ৩০০০ মি.লি গ্রাম পর্যন্ত নিরাপদ বলে মনে করে।

গবেষণা চলাকালীন সময়ে বাঁছাইকৃত রোগীদের শারীরিক ওজন, বডি ফ্যাট, বডি ম্যাস ইনডেক্স, এবং কোলেস্টেরল কমতে দেখা যায়। ধারনা করা হচ্ছে চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে রোগীদের পরিমিত খাদ্যাভাসের কারণে এই হ্রাস হতে পারে। সাধারণত অক্সিডেটিভ স্ট্রেসকে (অক্সিজেনের ভারসাম্যহীনতা) সেকেন্ডারী হাইপারটেনসনের অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয় । লিপিড পার অক্সিডেশনের বায়ো-প্রোডাক্ট থায়োবারবিটিউরিক এসিডই অক্সিডেটিভ স্ট্রেস সূচনা করে থাকে।

গ্রেপ কিং বায়োর গবেষকরা লক্ষ্য করেছেন যে, অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া উল্লেখযোগ্যভাবে উচ্চ রক্তচাপ রোগীদের থায়োবারবিটিউরিক এসিড লেভেল কমাতে সক্ষম হয় । তারা আরো উল্লেখ করেছেন যে, অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ হ্রাস করে দেয় ফলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীরা নিরাপদভাবে এটি সেবন করতে পারবেন ।

এছাড়া, রোগীরা গবেষণার সময়কালীন কোনো প্রতিকূল ঘটনার সম্মুখীন হয়নি যা প্রমান করে যে, অ্যান্ট্রোডিয়া সিনামোমিয়া মৃদু হাইপারটেনসিভ রোগীদের উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি নিরাপদ, বিকল্পময় চিকিৎসা। ইতিমধ্যে ছত্রাকটি লিভারের নানা সমস্যা যেমন-ফ্যাটি লিভার, হেপাটাইসিস, হেপাটিক ফিব্রোসিস, এবং লিভার ক্যান্সার সহ অনেক ধরনের রোগের ওষুধ হিসেবে তাইওয়ানে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে ।

লেখক: মাস্টার্স ইন ফুড সাইন্স, ন্যাশনাল পিংটং ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স এন্ড টেকনোলোজি, তাইওয়ান।

This post has already been read 1695 times!