২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ১৫ মে ২০২১, ৪ শাওয়াল ১৪৪২
শিরোনাম :

উপকূলের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা জরুরি ভিত্তিতে বেড়িবাঁধ সংস্কারের আহবান

Published at মে ১, ২০২১

ফকির শহিদুল ইসলাম (খুলনা) : উপকূলীয় অঞ্চলের জীবন-জীবিকার সুরক্ষায় টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় গৃহীত প্রকল্পসমূহ দ্রুত বাস্তবায়নের আহবান জানিয়েছেন খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের সংসদ সদস্য মো. আক্তারুজ্জামান বাবু। তিনি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বেরিবাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ পয়েন্টগুলো বর্ষা মৌসুম শুরুর আগেই জরুরি ভিত্তিতে সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন।

শুক্রবার (৩০ মে) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে ‘দুর্যোগের ঝুঁকিতে থাকা উপকূলের সুরক্ষায় প্রয়োজন টেকসই বেড়িবাঁধ ও আশু করণীয়’ শীর্ষক মিট দ্যা প্রেস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এই আহবান জানান।

নাগরিক সংগঠন সুন্দরবন ও উপকূল সুরক্ষা আন্দোলন এবং বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা লিডার্স আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুন্দরবন ও উপকূল সুরক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক নিখিল চন্দ্র ভদ্র। আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) যুগ্ম সম্পাদক মিহির বিশ্বাস, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মোরসালিন নোমানী, উন্নয়ন ধারা ট্রাস্টের সদস্য সচিব আমিনুর রসুল বাবুল, নৌ সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে, স্ক্যান সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মুকুল, সচেতন সংস্থার সাকিলা পারভীন, লিডার্সের সাইফুল ইসলাম, নাগরিক প্রতিনিধি শেখ আব্দুল্লাহ-আল মামুন, এড. সব্যসাচী মন্ডল, নিউটন কুমার রায় প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে এমপি আক্তারুজ্জামান বাবু সম্প্রতি দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলো পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ৬০ এর দশকে নির্মিত বাঁধগুলো দীর্ঘ দিন অবহেলিত ছিলো। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাঁধগুলো সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়। সরকারের ডেল্টা প্লানে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া আম্পান পরবর্তী সময়ে খুলনা-সাতক্ষীরা অঞ্চলে চারটি মেগা প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী কয়েক দফা ওই এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তারা মেগা প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে কার্যকর পদক্ষেপ নিবেন বলে আশাকরি।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহতার মধ্যে গত বছর সুপার সাইক্লোন আম্পান উপকূলীয় অঞ্চলে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছে। ঝড় ও জ্বলোচ্ছাসে বাঁধ ভেঙে খুলনা-সাতক্ষীরায় কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে। এরপর টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হলেও তার বাস্তবায়ন কাজ শুরু হয়নি। এর আগে ঘূর্ণিঝড় সিডর ও আইলার পর বেশকিছু প্রকল্প বাস্তবায়ন হলেও তার সুফল পাওয়া যায়নি। যে কারণে কপোতাক্ষ নদের মামুদকাটি, আগড়ঘাটাসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের দুই শতাধিক পয়েন্টে বেড়িবাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। তাই ঝড়ো মৌসুমকে সামনে রেখে চরম ঝুঁকির মধ্যে দিন কাটাচ্ছে ওই অঞ্চলের জনগণ। এই ঝুঁকি মোকাবেলায় দ্রুত প্রকল্প বাস্তবায়ন ও মনিটারিং জোরদার করার দাবি জানান তারা।

অনুষ্ঠানে ৬ দফা দাবি তুলে ধরে বলা হয়, সুন্দরবনের তীরবর্তী দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলকে দুর্যোগ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করে ঝুঁকিতে থাকা বেড়িবাঁধগুলো দ্রুত সংস্কারের উদ্যোগ নিতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তন ও দুর্যোগকে মাথায় রেখে স্থায়ী ও মজবুত বেড়িবাঁধ নির্মাণ করতে হবে। বাঁধ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য জরুরি তহবিল গঠন ও বাঁধ ব্যবস্থাপনায় স্থানীয় সরকারকে সম্পৃক্ত করতে হবে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের (ওয়াপদা) বাঁধের ১০০ মিটারের মধ্যে চিংড়ি বা কাঁকড়ার ঘের তৈরিতে সরকারের দেওয়া নিষেধাজ্ঞা দ্রুত কার্যকর করতে হবে। উপকূলীয় জনগণের নিরাপদ খাবার পানির টেকসই ও স্থায়ী সমাধানে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। সর্বোপরি উপকূলের উন্নয়নে পৃথক বোর্ড গঠনের সুপারিশ করা হয়।

This post has already been read 243 times!

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN