\ ভুট্টার উপযোগীতা যাচাই শীর্ষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত | Agrinews24
১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৪ মে ২০১৯, ১৯ রমযান ১৪৪০
শিরোনাম :

ভুট্টার উপযোগীতা যাচাই শীর্ষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

Published at এপ্রিল ২৫, ২০১৯

ফকির শহিদুল ইসলাম (খুলনা): ভুট্টা অত্যন্ত পুষ্টিকর একটি খাদ্য। ছোট বড় সবার কাছেই ভুট্টা সমান জনপ্রিয়। শুধু মানুষ নয়, পশুর খাদ্য হিসেবেও ভুট্টার সমান কদর রয়েছে। তাছাড়া জ্বালানী হিসেবে ভুট্টার গাছ ব্যবহৃত হয়ে থাকে। ভূট্টা গাছের কান্ডের রস থেকে উৎপাদিত গুড় খুবই পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু। তাই ভুট্টা বীজের সঠিক বাজার মুল্য পেতে হলে বাজারে প্রচলিত হাইব্রিড ভুট্টার স্থলে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট থেকে উদ্ভাবিত হাইবিড ভুট্টার বীজ ব্যবহার করতে হবে। মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সাতক্ষীরার ভোমরা ইউনিয়নের হাড়দ্দহা গ্রামে ‘উপকূলীয় এলাকায় বিএআরআই উদ্ভাবিত বিভিন্ন জাতের ভুট্টার উপযোগীতা যাচাই’ শীর্ষক মাঠ দিবসে প্রধান অতিথির বক্তৃায় সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ অরবিন্দ বিশ্বাস এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট সরেজমিন গবেষণা বিভাগ দৌলতপুর, খুলনা’র আয়োজনে এবং গোপালগঞ্জ জেলায় বিএআরআই -এর কৃষি গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন এবং দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে পরিবেশ-প্রতিবেশ উপযোগী গবেষণা জোরদারকরণের মাধ্যমে কৃষির উন্নয়ন প্রকল্প’-এর অর্থায়নে এ মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়।

মাঠ দিবসের সভাপতিত্ব করেন, সরেজমিন গবেষণা বিভাগ খুলনা’র প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক ড. মো. হারুনর রশিদ। তিনি তাঁর বক্তব্যে ভুট্টার বিভিন্ন পুষ্টিমানের দিক তুলে ধরেন। এছাড়া অত্র এলাকার প্রচলিত শস্য বিন্যাসে ভুট্টা চাষে সম্ভাবনার দিকটিও তিনি তুলে ধরেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সরেজমিন গবেষণা বিভাগের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মোশাররফ হোসেন। তিনি ধান ও ভুট্টার আবাদের তুলনামুলক আয়-ব্যয়ের বিষয়টি উল্লেখ করে কৃষকদের ভুট্টা চাষে আগ্রহী হওয়ার পরামর্শ দেন।

এছাড়া উক্ত অনুষ্ঠানে জনপ্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ৬ নং ভোমরা ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল গনি ও হামিদা খাতুন। তারা বলেন, ভুট্টা এই অঞ্চলে একটি নতুন ফসল। বাংলাদশে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহায়তা পেলে অত্র এলাকার সকল লবণাক্ত পতিত জমি ভুট্টা চাষের আওতায় আনা সম্ভব। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন, সাতক্ষীরা এমএরটি সাইটের বৈজ্ঞানিক সহকারি অমরেশ চন্দ্র সরকার।

 

This post has already been read 100 times!

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN