২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৬ জুন ২০২০, ১৫ শাওয়াল ১৪৪১
শিরোনাম :

পোলট্রি শিল্প দেশের মানুষের ভাগ্যে আমূল পরিবর্তন এনেছে – নারিশ চেয়ারম্যান

Published at ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: পোলট্রি শিল্প দেশের মানুষের ভাগ্যে আমূল পরিবর্তন এনেছে। বহু মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা দুটোই বেড়েছে। মানুষের দৈহিক বৃদ্ধির জন্য প্রোটিন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। প্রোটিনের ঘাটতির কারণে আগে মানুষ বেটে বা খাটো হতো, বর্তমানে অধিকাংশ ছেলে-মেয়ে লম্বার হওয়ার কারণ তারা পর্যাপ্ত প্রোটিন পাচ্ছে। আর এ কাজটি সহজতর করেছে দেশের পোলট্রি শিল্পের সাথে জড়িত লোকজন।

শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সাভারের আশুলিয়ায় অবস্থিত সামাজিক কনভেনশন সেন্টারে ’নারিশ পরিবেশক সম্মেলন-২০১৯’ এ কথাগুলো বলছিলেন খালেদ গ্রুপ অব কোম্পানিজ -এর চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান খালেদ।

সম্মেলন বক্তব্য রাখছেন খালেদ গ্রুপ অব কোম্পানিজ -এর চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান খালেদ।

তিনি বলেন, শুধু ব্যবসা করাটাই নারিশ’র মূল উদ্দেশ্য নয়। নারিশ একটি পরিবার এবং এর সাথে জড়িত সবার কথা আমরা চিন্তা করি। ব্যবসায় সততা ও নীতিতে অটুট থাকার কথা বলেন এ সময় তিনি। পোলট্রি শিল্পে গ্রামীন নারিদের অবদানের কথা তুলে ধরে বলেন, আপনাদের ঘরে যেসব নারীরা পোলট্রি খামার করেন সেখানকার আয়ের টাকা তাদের হাতে দিয়ে দিবেন। এটা তাদের অধিকার, সংসার সুন্দর থাকবে। জীবনে সবচেয়ে বড় শান্তির জায়গা পরিবার। সুতরাং সে জায়গটা সুন্দর রাখতে হবে।

সম্মেলনে নারিশ পোলট্রি ও হ্যাচারি লিমিটেড –এর পরিচালক শামসুল আরেফীন খালেদ (অঞ্জন) বলেন, এ কথা সত্য দেশের পোলট্রি খাত একটি ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। তবে, এ দুরাবস্থা থাকবেনা। তিনি বলেন, প্রতিটা ‍ব্যবসায় কিছু সময় দুঃসময় যায়। বুদ্ধিমানেরা সে দুঃসময়ে ইনোভেটিভ চিন্তা করে। খারাপ সময়টাকে কাজে লাগিয়ে ভালো কিছু করে।

সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন পোলট্রি ও হ্যাচারি লিমিটেড –এর পরিচালক শামসুল আরেফীন খালেদ (অঞ্জন)।

শামসুল আরেফীন খালেদ বলেন, আমাদের গতানুগতিক চিন্তা ধারা থেকে বের হয়ে আসতে হবে। পরিবেশকদেরও খামারি হতে হবে এবং সেই খামার অবশ্যই নিরাপদ ডিম ও মাংস উৎপাদন করতে হবে। যাতে আপনারা গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারেন, আমার খামারে উৎপাদিত ডিম ও মুরগি নিরাপদ।

নারিশ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মডেল খামার গড়ে তুলবে এবং সেখান থেকে ন্যায্য দামে মুরগি কিনবে বলে জানান তিনি। এছাড়াও বিদেশ থেকে মুরগির ব্রিড আমদানি যাতে না করতে হয় সেজন্য নারিশ নিজস্ব মুরগির ব্রিড উদ্ভাবনে কাজ করবে বলেও জানান শামসুল আরেফীন খালেদ।

নারিশ পোলট্রি ও হ্যাচারি লিমিটেড –এর পরিচালক সাইফুল আরেফীন খালেদ বলেন, যে কোন গুণগত মানের পণ্য উৎপাদন করতে গেলে গুণগত মানের কাঁচামাল অত্যাবশ্যক। ভালো মানের কাঁচামালের জন্য ভালো দামও দিতে হয় আমাদের। একইসঙ্গে গুণগত মান ও সহনীয় দাম দুটো বিষয় নিয়েই আমাদের ভাবতে হয়। আমরা প্রতিনিয়ত চেষ্টা করছি, কীভাবে পণ্যের মান ঠিক রেখে উৎপাদন খরচ কমিয়ে আনা যায় যাতে সবাই লাভবান হয়।

সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন নারিশ পোলট্রি ও হ্যাচারি লিমিটেড –এর পরিচালক সাইফুল আরেফীন খালেদ।

তিনি বলেন, আমরা কৃষির আরো অন্যান্য খাতে বিনিয়োগ করবো। সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে ফিড উৎপাদনের আরো উন্নত আধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে আসার পরিকল্পনা আছে আমাদের। মাছের জন্য আলাদা ল্যাব স্থাপন করা হবে। বাজারের চাহিদানুযায়ী লেয়ারের জন্য পুলেট উৎপাদন, সোনালী মুরগির ব্রিড নিয়েও কাজ করার পরিকল্পনা আছে। ডেইরি সেক্টরে কাঁচা ঘাসের বিকল্প সাইলেজ উৎপাদন করবে নারিশ বলে জানান তিনি। এছাড়াও রাজশাহীতে শীঘ্রই আম প্রক্রিয়াজাত প্লাণ্ট গড়ে তোলা হবে যার উৎপাদন ক্ষমতা হবে ঘণ্টায় ১২ মেট্রিকটন বলে জানান সাইফুল আরেফীন খালেদ।

এর আগে পরিবেশকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন, পাবনার ভাই ভাই পোল্ট্রি ফিড-এর স্বত্বাধিকারী সৈয়দ মো. মোন্তাজ আলী, কক্সবাজারের লোহাগাড়ার এম এস পোল্ট্রি ফিড এর স্বত্বাধিকারী তৈয়ব তাহের; মো. খলিল মজুমদার, কুমিল্লা; মমতাজ এগ্রো’র স্বত্বাধিকারী নজরুল ইসলাম প্রমুখ । এ সময় তারা পোলট্রি শিল্পে বর্তমান অবস্থা, ফিডের মান এবং দাম ও অন্যান্য নানা বিষয়ে পরামর্শ ও দাবী তুলে ধরেন।

সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন নারিশ পোলট্রি ও হ্যাচারি লিমিটেড –এর জেনারেল ম্যানেজার মো. ছামিউল আলিম। তিনি আগত পরিবেশকদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বিক্রয় পলিসি নিয়ে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন কোম্পানির এডিএম নুরুল মোস্তফা কায়সার।

সম্মেলনে আগত পরিবেশকদের মধ্য থেকে ন্যাশনাল ও স্টার ক্যাটাগরি অ্যাওয়ার্ড, জোনাল ক্যাটাগরি অ্যাওয়ার্ড, ক্যাশ বিজনেস ক্যাটাগরি অ্যাওয়ার্ড, রিজিওনাল ক্যাটাগরি অ্যাওয়ার্ড, সিলভার বিজনেস ক্যাটাগরি অ্যাওয়ার্ড, স্পেশাল ক্যাটাল অ্যান্ড ন্যাশনাল টপ থ্রি ক্যাটল ও ব্রোঞ্জ বিজনেস ক্যাটাগরিতে অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

স্টার অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত ৩ পরিবেশক (বা থেকে) নারিশ স্টার এজেন্ট-১ম স্থান সুরমা মৎস্য ও পোল্ট্রি ফিডের স্বত্বাধিকারী জাহিদুল ইসলাম, নারিশ স্টার এজেন্ট-২য় স্থান নাসিম খান পোল্ট্রি’র স্বত্বাধিকারী হাজী মো. ওমর ফারুক এবং নারিশ স্টার এজেন্ট ৩য় স্থান অর্জন করেন ভাই ভাই পোল্ট্রি এর স্বত্বাধিকারী সৈয়দ মো. মোন্তাজ আলী।

স্টার অ্যাওয়ার্ড ক্যাটাগরিতে মোট ৩জনকে পুরস্কার প্রদান করা হয়। নারিশ স্টার এজেন্ট-১ম স্থান অর্জন করেন দিনাজপুরের সুরমা মৎস্য ও পোল্ট্রি ফিডের স্বত্বাধিকারী জাহিদুল ইসলাম, নারিশ স্টার এজেন্ট-২য় স্থান অর্জন করেন নাসিম খান পোল্ট্রি, চট্টগ্রাম-এর হাজী মো. ওমর ফারুক এবং নারিশ স্টার এজেন্ট ৩য় স্থান অর্জন করেন পাবনার ভাই ভাই পোল্ট্রি এর স্বত্বাধিকারী সৈয়দ মো. মোন্তাজ আলী।

সম্মেলনে সমাপনী বক্তব্য রাখেন নারিশ পোলট্রি অ্যান্ড হ্যাচারি লিমিটেড এর পরিচালক (ফাইন্যান্স এন্ড ইমপোর্ট) মো. রফিকুল ইসলাম বাবু। এ সময় তিনি সফলভাবে সম্মেলন সম্পন্ন করার জন্য আগত অতিথি ও কোম্পানির কর্মকর্তা কর্মচারিদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

সম্মেলনে আগত অতিথিদের জন্য নির্মল বিনোদনের ব্যবস্থা রাখা হয় যেখানে পারফর্মেন্স করেন রাজীব, সজল ও আরমান।

সম্মেলনে নারিশ পোল্ট্রি এন্ড হ্যাচারী লিমিটেড -এর অন্যান্য পরিচালক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কোম্পানিরর ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (সেলস্ এন্ড সার্ভিস) ডা. মো. মুছা কালিমুল্লাহ। এছাড়াও সারাদেশে কর্মরত বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারিগণ।

উল্লেখ্য সমগ্র অনুষ্ঠানটিতে সঞ্চালকের ভূমিকা পালন করেন সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সিনিয়র ডিজিএম (সেলস্ এন্ড মার্কেটিং) এস.এম.এ. হক। পবিত্র কোরআন থেকে তেলওয়াত করেন হাফেজ মো. আবদুল করিম ভাষা শহীদ ও দেশের জন্য দোয়া পরিচালনা করেন ডা. মো. শহীদুল ইসলাম।

This post has already been read 2891 times!

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN