২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০ রবিউস-সানি ১৪৪১
শিরোনাম :

পাবনার পারগোবিন্দপুর গ্রামে নবান্ন উৎসব উদযাপন

Published at ডিসেম্বর ২, ২০১৯

তুষার কুমার সাহা (পাবনা) : গ্রামীন ঐতিহ্য “ নতুন ধান্যে হবে নবান্ন” এ বানী অবহমান কাল থেকে গ্রামে গ্রামে পালিত হয়ে থাকে অঘ্রানে নতুন ধানের নবান্ন উৎসবে। এক কথায় বলা যায় নবান্ন উৎসব হলো গ্রামীন ঐতিহ্যের স্মারক। এর ধারাবহিকতায় পাবনা সদর উপজেলা জেলা কৃষক লীগের সহযোগিয়তায় ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে পারগোবিন্দপুর গ্রামের ঈদগাহ মাঠে বটবৃক্ষ তলে পহেলা ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হলো দিন ব্যাপী গ্রামীন বাংলার নবান্ন উৎসব।

পাবনাস্থ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. আজাহার আলীর সভাপত্বিতে অনুষ্ঠিত নবান্ন উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাবনা-৫ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোশাররফ হোসেন, পাবনা জেলা কৃষক লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শহিদুর রহমান শহীদ, মালঞ্চী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো.আব্দুল আলিম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জয়নাল আবেদিন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,মালঞ্চী ইউনিয়নের সধারণ সম্পাদক মো. আমিরুল ইসলাম। উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাবনার জেলা প্রশাসক মো. কবীর মাহমুদ ।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্যে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ এ.এ মাসুম বিল্লাহ বলেন, পুরানো দিনের গ্রাম বাংলার গ্রামীন ঐতিহ্য নবান্ন উৎসব তুলে ধরেন এবং এ উৎসবকে পহেলা ডিসেম্বর জাতীয় নবান্ন উৎসব দিবস হিসেবে ঘোষণা করার জন্য প্রধান অতিথিকে মহান জাতীয় সংসদে উপস্থাপনের অনুরোধ জানান।

প্রধান অতিথি পাবনা-৫ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স আয়োজিত নবান্ন উৎসব দেখে উচ্ছসিত হয়ে তার বক্তব্যে বলেন, অতিথের সেই চিরায়িত নবান্ন উৎসব যেন গ্রাম বাংলার কৃষক-কৃষানীরা আজকের মতো প্রত্যেক ঘরে ঘরে জাকঁজমকপূর্ন ভাবে পালন করেন। তিনি অয়োজকদের ধন্যাবাদ জানান। তিনি আরও  বলেন, বর্তমান কৃষি বান্ধব সরকার কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে গ্রামকে শহরের সাথে তুলনা করে ‘আমার গ্রাম ও আমার শহর’ গড়তে উপস্থিত কৃষক-কৃষানীদের উদাত্ব আহবান জানান।

পাবনার জেলা প্রশাসক মো.কবীর মাহমুদ নবান্ন উৎসব উদ্বোধন করে তার বক্তব্যে বলেন, বর্তমান সরকার কৃষকের উৎপাদিত ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতকরণে প্রকৃত কৃষকের তালিকা নিরুপনে ইউপি চেয়ারম্যান,কৃষক সংগঠন ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গের সহযোগিতা কামনা করেন। এ ব্যাপারে জেলা /উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ও নির্বাহী কর্মকর্তাদের প্রকৃত কৃষকদের নিকট থেকে  ধান ক্রয় করার অনুরোধ জানান।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. আজাহার আলী, পাবনা জেলা কৃষক লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শহিদুর রহমান শহিদ,সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুল আলম,এবং সদর উপজেলার কৃষক লীগের সম্পাদক মাজাহারুল ইসলাম।

নবান্ন উৎসবে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পাবনার আঞ্চলিক কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ প্রশান্ত কুমার সরকার,কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার কৃষিবিদ কুন্তলা ঘোষ,পাবনার সহকারী তথ্য অফিসার (অ:দ:) তুষার কমার সাহা,এআইসিও মো. জুলফিকার আলী ও আশিষ তরফদার এবং স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ,বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ, উপসহকারী কৃষি র্কমর্কতাসহ প্রায় ৮ শতাধিক কৃষক/কৃষানী। অনুষ্টান শুরুর পূর্বে পারগোবিন্দপুর মাঠে অতিথিবৃন্দ সহ ধান কর্তন উৎসবে অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠান শেষে উপস্থিত সুধীজনদের মাঝে গ্রামের কৃষক-কৃষানী নিজ হাতে বানানো নবান্ন উৎসবের বিভিন্ন রকমারী পিঠা পরিবেশন করেন। অনুষ্টান সঞ্চালনায় ছিলেন উপসহকারী কৃষি অফিসার মো.আবু সাহিদ শিখন।

This post has already been read 155 times!

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN