২ আষাঢ় ১৪২৬, ১৬ জুন ২০১৯, ১৩ শাওয়াল ১৪৪০
শিরোনাম :

পাটের বহুমুখী ব্যবহার বাড়াতে হবে -প্রধানমন্ত্রী

Published at মার্চ ৬, ২০১৮

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাটের বহুমুখী ব্যবহার বাড়াতে হবে। কারণ, এই পাট আমাদের জাতীয় সম্পদ। একদিক এটি কৃষি সম্পদ অন্যদিকে আমাদের শিল্পপণ্য কাজেই এর অনেক সম্ভাবনা রয়েছে এবং অনেক উন্নতমানের পাটও পাটজাত পণ্য আমরা তৈরী করতে পারি। সে সম্ভাবনাও আমাদের রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় পাট দিবস-২০১৮ উপলক্ষ্যে তিনদিন ব্যাপী পাটপণ্য মেলার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটি বড় সমস্যা রয়েছে যন্ত্রপাতিগুলো অত্যন্ত পুরনো, কাজেই এই মেশিনারিজগুলো সব বদলাতে হবে। নতুন মেশিনারিজের ব্যবস্থা করতে হবে। যদিও এ ব্যাপারে আমরা সবরকম চেষ্টা করছি। আমরা পাটকে আরো আধুনিকিকরণের মাধ্যমে পাট উৎপাদন, পাট সংগ্রহ, পাট সংরক্ষণ-কার ব্যবস্থা করেছি।’

তিনি বলেন, এই পাটকলগুলোর তিন হাজার কোটি টাকার ব্যাংক ঋণ ছিল যেটি সরকার মওকুফ করে সরকারই তা পরিশোধের উদ্যোগ নিয়েছে এবং অর্থ মন্ত্রণালয় অর্থ প্রদানের ক্ষেত্রে কেবল যে কৃপণতা করে তাও নয়, বরং পাটকলগুলোর দায়-দেনা মুক্ত করে তাকে নতুনভাবে চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে শিল্পটা আপনাদের জীবন-জীবিকার সবরকম উপকরণ দিচ্ছে সেই শিল্পটাকে বাঁচাতে হবে। এখন এগুলোকে সচল রাখার দায়িত্ব, যারা পাটকলগুলোর ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন তাদের, সংশ্লিষ্ট শ্রমিক এবং কর্মচারি প্রত্যেকের।

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী মো.ইমাজউদ্দিন প্রামাণিক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী এবং বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মীর্জা আজম। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী দেশব্যাপী স্কুল পর্যায়ে আয়োজিত পাট বিষয়ে রচনা প্রতিযোগিতার বিজয়ী এবং পাট উৎপাদন, পাট রপ্তানী, পাট প্রক্রিয়াজাতকরণসহ পাটের খাতের সমৃদ্ধির সঙ্গে জড়িত ১১টি ক্যাটাগরিতে ১২ জনকে অনুষ্ঠানে পুরস্কৃত করেন।

মন্ত্রী পরিষদ সদস্যগণ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাগণ, সংসদ সদস্যগণ, সরকারের পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনিতিকবৃন্দ, উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার সদস্যবৃন্দ, আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ এবং পাটের সংগে সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তা, পাটচাষী এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে পাট পণ্যের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যত বিষয়ে একটি প্রামাণ্য চিত্রও প্রদর্শিত হয়।

পাট পণ্য মেলার উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন স্টলগুলো ঘুরে দেখেন এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় আয়োজিত বর্নাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও উপভোগ করেন।

This post has already been read 281 times!

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN