৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ জুলাই ২০১৯, ১৭ জিলক্বদ ১৪৪০
শিরোনাম :

ঘূর্নিঝড় ফণিতে দেশে ফসলের ক্ষতি প্রায় সাড়ে ৩৮ কোটি টাকা

Published at জুলাই ৭, ২০১৯

ঢাকা সংবাদদাতা: ঘূর্ণি ঝড় ‘ফণি’র কারণে দেশের প্রায় ৩৫টি জেলার ২০৯টি উপজেলায় বোরো ধান, ভুট্টা, সবজি, পাট, coque iphone x পান সহ প্রায় ৬৩ হাজার ৬৩ হেক্টর জমির ফসল আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্ত ফসলি জমির মধ্যে বোরো ধানের জমি ৫৫ হাজার ৬ শত ৯ হেক্টর, coque iphone soldes সবজির জমি ৩ হাজার ৬ শত ৬০ হেক্টর, ভুট্টার জমি ৬ শত ৭৭ হেক্টর, পাটের জমি ২ হাজার ৩ শত ৮২ হেক্টর, পান ৭ শত ৩৫ হেক্টর। আক্রান্ত জেলার ধানের ক্ষেত্রে ২ %, সবজির ক্ষেত্রে ৯%, ভুট্টার ক্ষেত্রে ১৫% ক্ষতির, vente de coque iphone পাটের ৫% এবং পানের ক্ষেত্রে ১% ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। মোট প্রাক্কলিত আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ৩৮ কোটি ৫৪ লক্ষ ২ হাজার ৫ শত টাকা। মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক, coque iphone 7 এমপি মন্ত্রণালয় এর সভাকক্ষে ঘূর্নিঝড় ‘ফণি’র কারণে আক্রান্ত ফসলি জমি,সম্ভাব্য ক্ষতি ও গৃহীত পদক্ষেপ নিয়ে প্রেস ব্রিফিংএ এসব কথা বলেন। কৃষিমন্ত্রী আ. রাজ্জাক জানান, coque iphone xr কর্মকর্তাগণ মাঠে কৃষকদের শতকরা ৮০ ভাগ পরিপক্ক ধান কেটে নেয়া ও রবি ভুট্টা ফসল সংগ্রহ এবং খরিপ-১ মৌসুমের বপন যোগ্য ফসলের বীজ বপন না করার পরামর্শ প্রদান করেছেন। হেলে পড়া পরিপক্ক বোরো ধান দ্রুত কেটে ফেলার পরামর্শ প্রদান করা হয়। জলাবদ্ধতার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত আউশ ক্ষেতে গ্যাপ পূরণের জন্য ঘনগোছা থেকে চারা উত্তোলন করে ফাঁকা জায়গায় রোপনের পরামর্শ প্রদান করা হয়। সবজি ক্ষেতের জমে থাকা পানি দ্রুত নিস্কাশনের পরামর্শ দেয়া হয়। নষ্ট হওয়া গাছের গোড়ায় নতুন চারা লাগিয়ে শূন্য স্থান পূরণ করার পরামর্শ দেয়া হয়। তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের তালিকা তৈরি করে পুনর্বাসন কর্মসূচির আওতায় বীজ, সার ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করার কর্মসূচি নেয়া হবে। পরবর্তী খরিপ ২০১৯-২০ মৌসুমে রোপা আমন ধানের বীজ/চারা উৎপাদন, বিতরণ ও মাসকলাই বীজ বিতরণ কর্মসূচি গ্রহণ করার পরিকল্পনা রয়েছে। রবি-২০১৯-২০ মৌসুমে বিনামূল্যে বোরো ধান, coque iphone 7 গম, ভুট্টা, সরিষা, চিনাবাদাম,

This post has already been read 6 times!

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN