২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৪ জুন ২০২০, ১২ শাওয়াল ১৪৪১
শিরোনাম :

আলমডাঙ্গায় বারি সরিষা-১৪ জাতের মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

Published at ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২০

মো. জুলফিকার আলী (পাবনা) : চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে ২০১৯-২০ অর্থবছরের রাজস্ব খাতের অর্থায়নে বাস্তবায়িত প্রদর্শনীর বারি সরিষা-১৪ জাতের প্রচার ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে এক মাঠ দিবস আলমডাঙ্গা উপজেলার কুমারী গ্রামে মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সরিষা ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি করাই ছিল মাঠ দিবসের মূল উদ্দেশ্য। মাঠ দিবসে আলমডাঙ্গা উপজেলার কুমারী ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গাস্থ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. আলী হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা এবিএম মমিন উর রশিদ স্বাগত বক্তব্যে বারি সরিষা-১৪ জাতটির বৈশিষ্ট, জীবনকাল ও চাষাবাদ সর্ম্পকে আলোচনা করেন। মাঠ দিবসের মাধ্যমে বিভিন্ন ফসলের উৎপাদন বাড়াতে কৃষক-কৃষানীদের সচেতন করা হচ্ছে বলে তিনি তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

প্রধান অতিথি উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. আলী হাসান বক্তব্যে বলেন, চলতি মৌসুমে এ জেলায় রাজস্ব খাতের অর্থায়নে বাস্তিবায়িত প্রদর্শনীর বারি সরিষা-১৪ জাতের চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে উচ্চ ফলনশীল বারি-১৪ ও বারি-১৫ জাতের সরিষা বেশির ভাগ জমিতে লাগানো হয়েছে। ফলনও বাম্পার হয়েছে। পাশাপাশি কৃষক তার উৎপাদিত সরিষার ভাল দাম পাবেন বলেও জানান। ফলন আশাব্যঞ্জক হওয়ায় কৃষকের জন্য এ জাতের চাষ খুবই লাভজনক বলে উপস্থিত কৃষক-কিষানীদের এর আবাদ বাড়ানোর জন্য অনুরোধ জানান।

বিশেষ অতিথি উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বক্তব্যে বলেন ,বারি সরিষা-১৪ বপনের উপযুক্ত সময়  হলো মধ্য আশ্বিন থেকে মধ্য কার্তিক (অক্টোবর), ফলনের গুণগত বৈশিষ্ট্য গোল ও রং হলুদ, শুটি ৪ প্রকোষ্ঠ বিশিষ্ট । হাজার বীজ ৩.৫-৩.৮গ্রাম  বীজে তেলের পরিমাণ ৪৩-৪৪%। জাতটি টরি ৭ এর বিকল্প হিসেবে চাষ করা যায়। জীবনকাল ৮০-৯০ দিন হওয়ায় কৃষকদের জন্য রবি মৌসুমে এর চাষ খুবই উপযোগী। এ জাতটি আমন ধান কাটার পর স্বল্পমেয়াদী জাত হিসেবে চাষ করে বোরো ধান রোপন করা সম্ভব বলে জানান।

অনুষ্ঠানের আগে মো. নূরুল ইসলাম এর বারি সরিষা-১৪ জাত প্রদর্শনী প্লটের আগত চাষীদের দেখানো হয়। আগত চাষীদের সকলেই এ জাতটি আবাদের সম্মতি জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠানে প্রায় শতাধিক কৃষক/কৃষাণী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্টনটি সঞ্চলনা করেন, আলমডাঙ্গা উপজেলা কৃষি অফিসের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. নজরুল  ইসলাম।

This post has already been read 733 times!

Fixing WordPress Problems developed by BN WEB DESIGN